fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

চাঁচোলে প্রকৃত পরিযায়ী শ্রমিকরা রেশনের স্লিপ না পেয়ে গ্রাম পঞ্চায়েতে বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, মালদা: প্রকৃত পরিযায়ী শ্রমিকরা রেশনের স্লিপ না পেয়ে গ্রাম পঞ্চায়েতে বিক্ষোভ দেখালো শ্রমিকরা। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার মালদার চাঁচোল থানার মতিহার পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘটনা। শ্রমিকদের অভিযোগ, রাজ্য সরকার ঘোষণা করলেও পরিযায়ী হওয়া সত্বেও তাদের সাহায্য দেওয়া হচ্ছে না। অথচ সেই স্লিপ অন্যদের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে। যে তালিকা বের হয়েছে তাতে তৃণমূল পরিচালিত প্রধান ও মেম্বারদের ঘনিষ্ঠদের নাম রয়েছে।

জানা গিয়েছে, করোনা সংক্রমণের জেরে দীর্ঘদিন ধরে বহু শ্রমিক আটকে পরে ভিন রাজ্যে। এরপর সরকারি সহযোগিতায় ভিন রাজ্যের শ্রমিকদের জেলায় জেলায় ফেরানোর কাজ শুরু করে। পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী সেই সময় রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে সমস্ত শ্রমিকদের বিনামূল্যে রেশন সামগ্রী দেওয়ার কথা ঘোষণা করে। কিন্তু দেখা যায় সেই রেশন সামগ্রী নিয়ে মালদা জেলার বিভিন্ন জায়গায় দুর্নীতির অভিযোগ উঠে আসে। দেখা যায় রেশনে প্রকৃত শ্রমিক যারা রয়েছে তাদের নাম নেই অথচ পঞ্চায়েত প্রধান ও মেম্বারদের ঘনিষ্ঠদের নাম ওই তালিকায় রয়েছে। যার ফলে প্রকৃত পরিযায়ী শ্রমিক যারা তারা রেশন পাচ্ছেন না।

ইতিমধ্যেই মালদার চাঁচোল এলাকার মতিহার পুর গ্রাম পঞ্চায়েতের শ্রমিকদের রেশন দেওয়ার জন্য স্লিপ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। সেখানে দেখা গিয়েছে বহু শ্রমিকের নাম নেই সেখানে মেম্বার ও পঞ্চায়েত প্রধানের সদস্যদের ঘনিষ্ঠদের নাম রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও প্রধানকে জানানো হলেও কোনো রূপ ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। যার ফলে এদিন বাধ্য হয়ে কয়েকশো শ্রমিক গ্রাম পঞ্চায়েত অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। এক পরিযায়ী শ্রমিক আব্দুল খালেক বলেন, করোনা আবহে দীর্ঘদিন দিল্লিতে আটকে পড়েছিলেন। সম্প্রতি জেলায় ফিরে এসেছে। এখানে এসে রেশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করা হলেও প্রধান মেম্বাররা তাদের রেশনের স্লিপ দিচ্ছেন না। যার ফলে তারা সমস্যায় পড়েছেন। এদিন বাধ্য হয়ে আমরা পঞ্চায়েত দপ্তরের ঘেরাও করেছি।এরপরেও রেশন সামগ্রী দেওয়ার ব্যাপারে তালিকাভুক্ত না করলে বৃহত্তর আন্দোলন করবো।

এনিয়ে গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পপি দাসের কোন প্রতিক্রিয়া না পাওয়া গেলেও বিজেপির মালদা জেলার সহ-সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, শ্রমিকরা বঞ্চিত হচ্ছে এবং তৃণমূলের গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্যরা মোটা টাকা কাটমানির বিনিময় অন্যদের দিয়ে দিচ্ছে।আমরা এই নিয়ে আন্দোলনে নামবো। তৃণমূলের কাজ শুধু লুঠ আর দূর্নীতি করা।

তৃণমূলের মালদা জেলার মুখপাত্র শুভময় বসু বলেন, এটা সঠিক অভিযোগ নয়। মতিহার পুর অনেক বড় গ্রাম পঞ্চায়েত প্রচুর শ্রমিক রয়েছে। কিছু শ্রমিককে স্লিপ দেওয়া হয়েছে বাকিদের ও দেওয়া হবে। এই সরকার নিজের প্রতিশ্রুতি রাখে।

Related Articles

Back to top button
Close