fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দুর্গাপুরে রোগীর পরিবারকে বাউন্সার দিয়ে মারধরের অভিযোগ বেসরকারী হাসপাতালের বিরুদ্ধে

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: কাউন্সিলিংয়ের নামে বাউন্সার দিয়ে রোগীর পরিবারকে মারধরের অভিযোগ উঠলো দুর্গাপুর সিটিসেন্টারের একটি বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে। ঘটনায় জখম  রোগীর পরিবারের এক সদস্য। মঙ্গলবার ঘটনাকে ঘিরে চরম উত্তেজনা ছড়াল হাসপাতাল চত্বরে। পরিস্থিতি সামাল দিতে নামে বিশাল পুলিশ বাহিনী। যদিও অভিযোগের কথা অস্বীকার করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পাল্টা নিরাপত্তারক্ষীকে মারধরের  অভিযোগ করে রোগীর পরিবারের বিরুদ্ধে।

ঘটনায় জানা গিয়েছে, দুর্গাপুর স্টিল টাউনশিপ এ- জোনের আকবর রোড এলাকার বাসিন্দা ধনবন্তী সিং। বছর ৭২’র ধনবন্তীদেবী বার্ধক্যজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে শনিবার ওই বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন। দু’দিন চিকিৎসাধীন থাকার পরে সোমবার রাতে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তড়িঘড়ি তাঁকে ভেন্টিলেশনে স্থানান্তরিত করে। এবং পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়। মঙ্গলবার দুপুরে রোগীর পরিবারের লোকজনকে চিকিৎসকদের সঙ্গে আলোচনার জন্য ডেকে পাঠায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সেই মত ধনবন্তীদেবীর দুই ছেলে রতন সিং ও অজয় সিং হাসপাতালে এসে চিকিৎসকদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন।

অভিযোগ, আলোচনা চলাকালীন হঠাৎই চারজন বাউন্সার এসে দাঁড়াতেই ঘটে বিপত্তি। রতনবাবু বলেন, “চিকিৎসকদের জিজ্ঞাসা করি রোগীর শারীরিক সম্পর্কিত আলোচনার বিষয়ে বাউন্সার কেন ?  আতঙ্কিত হয়ে মোবাইল ফোনে বাউন্সারদের ছবি ভিডিও করতে গেলে শুরু হয় বাউন্সারদের সঙ্গে বচসা। অভিযোগ, ওই সময় এক চিকিৎসক রতন ও অজয়বাবুকে মারার জন্য বাউন্সারদের নির্দেশ দেওয়া হয়। আর তারপরই বাউন্সাররা এলোপাথাড়ি মারধর করে আমাদের দুভাইকে।

রতনবাবু বলেন, “আমার মা হাসপাতালে যখন ভর্তি হয়েছিলো তখন নিজের হাতে করে খাবার খাচ্ছিলেন। চিকিৎসার গাফিলতির কারণে তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটেছে। সেই কারণে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আলোচনার জায়গায় বাউন্সার পাঠিয়েছিলেন।” এদিকে ঘটনার খবর চাউর হতেই হাসপাতাল চত্ত্বরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশবাহিনী। এবং পরিস্থিতি সামাল দেয়।

হাসপাতালের আধিকারিক প্রবীর মুখোপাধ্যায় বলেন, “এই ধরনের অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। রোগীর সুস্থতার জন্য চিকিৎসকদের মধ্যে একাধিকবার বোর্ড মিটিং করা হয়েছে। সেখানে রোগীর পরিবারের লোকজনের কাছ থেকে এই ধরণের ব্যাবহার আশা করা যায়না। তাঁরা আমাদের একজন নিরাপত্তারক্ষীকে মারধর করেছেন।”

Related Articles

Back to top button
Close