fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

দেশের করোনা সংক্রমণের হার উর্দ্ধমুখী, মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৩৯ লক্ষ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  ফের দেশে একদিনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ৮৩ হাজার ছাড়িয়ে গেল। এই নিয়ে পরপর দু’দিন। আনলক ৪-এ দেশে  উর্দ্ধমুখী সংক্রমণ। কোনও ভাবেই বাঁধ মানছে। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ৩৯ লক্ষ। একদিনে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১১০০জনের। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের প্রকাশিত বুলেটিনের পরিসংখ্যান উদ্বেগ বাড়াচ্ছেই। অবশ্য করোনা থেকে সুস্থতার হারও খারাপ নয়। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এখনও পর্যন্ত করোনামুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩০ লক্ষ ৩৭ হাজার ১৫২জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১০৯৬ জন করোনা ভাইরাসের বলি হওয়ায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৮ লক্ষ ৪৭২।

ব্যাপক হারে নমুনা পরীক্ষা অনেকটাই কার্যকরী হচ্ছে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রক সূত্রে খবর। গত ২৪ ঘণ্টাতেই শুধুমাত্র ১১ লক্ষেরও বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত তার সংখ্যা ৪ কোটি ৬৬ লক্ষের বেশি। আর তাতেই দ্রুত হারে করোনা রোগীকে চিহ্নিত করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা সম্ভব হচ্ছে। এভাবেই মহামারীর বিরুদ্ধে গত কয়েকমাস ধরেই লড়ছে ভারত।

আরও পড়ুন: করোনার সঙ্কটেই ২৪৮৫২ টন পণ্য পরিবহন করেছে পূর্ব রেল

ভাইরাসে,মোদি,ভারত,মহামারীর,স্বাস্থ্যমন্ত্রক,জনসংখ্যার,সচেতনতা,মহারাষ্ট্রে কোভিড পরিস্থিতি খুবই ভয়াবহ। সেখানে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা ৮ লাখ ৪৩ হাজার ৮৪৪৪ জন। ২৫ হাজার ৫০০-রও বেশি মানুষ ওই রাজ্যে করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন। মহারাষ্ট্রে প্রতি চার মিনিট অন্তর ১ জনের মৃত্যু হচ্ছে। একইভাবে প্রতি ঘণ্টায় ৭৫৪ জন নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন। সুস্থতার হার ৭২.৪৮ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ৭২.৫৮ শতাংশ। মৃত্যুর হার ৩.৩ শতাংশ। মহারাষ্ট্র ছাড়াও এই মুহূর্তে করোনা বিধ্বস্ত রাজ্যগুলির অন্যতম তামিলনাড়ু, কর্ণাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ ও দিল্লি। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পর বিশ্বের তৃতীয় করোনা বিধ্বস্ত দেশ ভারত।

সুস্থতা ঘিরে দেশজুড়ে তৈরি হওয়া এই স্বস্তির প্রসঙ্গ এ দিন উঠে এসেছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কথাতেও। ভারত-মার্কিন যৌথ বাণিজ্য মঞ্চের অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘এত বিপুল জনসংখ্যার দেশ হওয়া সত্ত্বেও ভারতে প্রতি দশ লক্ষে মৃতের সংখ্যা বিশ্বে সবথেকে কম। সুস্থতার হার লাগাতার বেড়ে চলেছে।’ মাস্ক এবং সামাজিক দূরত্বের মতো স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে শুরু থেকেই মানুষের মধ্যে সচেতনতা ছড়িয়ে দেওয়ার ফলেই এটা সম্ভব হয়েছে বলে জানান মোদি। তাঁর কথায়, ‘করোনা প্রতিষেধকের গবেষণাতেও প্রথম সারিতে রয়েছে ভারত।’

Related Articles

Back to top button
Close