fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাটোয়ায় ক্ষুধার্ত পথ কুকুরকে নির্মম প্রহার, কেতুগ্রামের মহিলার উদ্যোগে হল চিকিৎসা

দিব্যেন্দু রায়, কাটোয়া: ক্ষুধার জ্বালায় এক গৃহস্থবাড়িতে খাবারের সন্ধানে ঢুকেছিল একটি পথ কুকুর। সেই অপরাধে কুকুরটি নির্মমভাবে প্রহার করার পর ধাতব তার দিয়ে মুখ বেঁধে ফেলে রাখা হল রাস্তার পাশে । ঘটনাটি কাটোয়া শহরের কেশিয়াপাড়া এলাকার ৷ সেই সময় ওই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন কেতুগ্রামের বাসিন্দা সুজাতা দত্ত নামে এক মহিলা। তিনি কুকুরটির ওই অসহায় অবস্থা দেখে অবস্থা দেখে কার্যত কেঁদে ফেলেন। তারপর মুলত তাঁর উদ্যোগেই কুকুরটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে ‘পেট ওনার্স আ্যসোসিয়েশন’ নামে কাটোয়ার একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তত্বাবধানে রয়েছে জখম পথ কুকুরটি।

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মকর্তা প্রসেনজিত বন্দ্যোপাধ্যায়, অয়ন দত্তরা বলেন, “কুকুরটিকে প্রচন্ড মারধর করা হয়েছে । সম্ভবত তার কোমড়ের হাড় ভেঙে গেছে । এখন ওষুধ ও স্যালাইন দিয়ে কিছুটা সুস্থ করার চেষ্টা করছি। এরপর এক্সরে করানোর পর হাড়ের চিকিৎসা করানো হবে।”

একটা ক্ষুধার্থ কুকুরের উপর এরকম অমানবিক আচরনের তীব্র নিন্দা করেছেন সুজাতা দত্ত । তিনি বলেন, “লক ডাউনের কারনে রাস্তার কুকুররা খেতে পাচ্ছে না। তাই খিদের জ্বালায় যদি কোথাও খাবার দেখে মুখ দিতে যায় সেটা তো তাদের অপরাধ নয় । এই কঠিন পরিস্থিতিতে ওই সমস্ত অসহায় পশুদের উপর মানবিক আচরণ দেখানো আমাদের সকলের উচিত । তার পরিবর্তে আমরা যদি ওই অবলা পশুগুলোর উপর এই রকম নির্মম আচরন করি তা কখনও মেনে নেওয়া যায় না।”

জানা গেছে, কাটোয়া পুরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ড এলাকার একটি অব্যবহৃত সরকারি ঘরে কুকুরটিকে রেখে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে। শনিবার গিয়ে দেখা গেল কুকুরটিকে মাংস ভাত খেতে দেওয়া হয়েছে । পাশাপাশি তাকে নিয়ম করে ওষুধ খাওয়াচ্ছেন কাটোয়ার ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্যরা।

Related Articles

Back to top button
Close