fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মহারাষ্ট্রের পর এবার মালদা, মাল গাড়িতে কাটা পড়লেন রেল লাইনে ঘুমন্ত শ্রমিক!

মিল্টন পাল, মালদা: মাল গাড়িতে কাটা পড়লেন ঘুমন্ত এক দিনমজুর শ্রমিক। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে মালদা থানার সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের শান্তিপুর এলাকায়। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে রেললাইনে ঘুমানোর কথা দাবি করা হলেও রেল কর্তৃপক্ষ একথা মানতে নারাজ। যদিও রেল পুলিশের অনুমান রাতের অন্ধকারে রেল লাইন পারপার করতে গিয়েই মালগাড়ি ধাক্কায় মৃত্যু হয়েছে।মৃতদেহ ময়না তদন্তে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রেল ও মালদা থানার পুলিশ।

 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম উত্তম মণ্ডল (৩০)। বাড়ি শান্তিপুর এলাকায়। মালদা থানার কোর্ট স্টেশন থেকে হবিবপুর ব্লকের সিঙ্গাবাদ পর্যন্ত হচ্ছে এনএফরেলের অধীনে। দেশের শেষ সীমান্ত স্টেশন হিসেবে পরিচিত সিঙ্গাবাদ। তারপরে যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ রেলপথ লাইন। হাতে গোনা এক থেকে দুটি মালগাড়ি ছাড়া এমনি কোনো যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করে না ওই রুটে বলে রেল সূত্রের খবর।

এদিকে মৃতের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, মালদার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত সংযোগকারী রেললাইন রয়েছে পুরাতন মালদার শান্তিপুর এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই যুবক এদিন রাতে লাইনের ওপর ঘুমিয়ে ছিলেন। রাতে তেলের ট্যাংকারের মালগাড়ি ওই ব্যক্তির ওপর দিয়ে চলে যায়। ওই লাইনটি হবিবপুর হয়ে বাংলাদেশের চলে গিয়েছে। এমনিতেই রেললাইনে ব্যস্ততার কোনও কারণ নেই। খুব কম মালগাড়ি যাতায়াত করে। তবে রাতে ওই ব্যক্তি রেল লাইনে ঘুমিয়ে ছিলেন কিনা এই বিষয়টি এখনও পরিষ্কার হয় নি।

উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগেই মহারাষ্ট্রের ঔরঙ্গাবাদে পরিযায়ী শ্রমিকের দল রেললাইনে ঘুমিয়ে পড়েছিলেন।তারপরে মাল গাড়ির ধাক্কায় মৃত্যু হয় ঘুমন্ত ১৪ জন শ্রমিকের । আর এই ঘটনার পরেই মালদায় আবারো রেলে কাটা পড়ে এক শ্রমিকের মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

 

রেল পুলিশকর্তাদের অনুমান,ওই যুবক রেল লাইন পার হতে গিয়ে কাটা পড়তে পারেন। অথবা কেউ তাকে খুন করে ফেলে দিয়েছে। পরে মালগাড়ি চলে যায়। তবে ঘটনা যায় হোক এনিয়ে মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট হয়নি। রেল পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠিয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সম্পর্কে বলা যাবে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে মালদা থানার পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close