fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নন্দীগ্রামে একদল সংখ্যালঘুদের বিজেপিতে যোগদান

রাজকুমার আচার্য, নন্দীগ্রাম: বিজেপি সাম্প্রদায়িক দল! মুসলিম বিরোধী। মুসলিমদের দেশ থেকে তাড়াতে চায়— এই প্রচলিত কথা মানতে রাজি নয় নন্দীগ্রামের মুসলিমদের একাংশ। বরং বিজেপি তাঁদের জন্য অনেক কিছু করেছেন। এই বক্তব্যকে সামনে রেখে নন্দীগ্রামের মুসলিম সম্প্রদায়ের অনেক মানুষ যোগ দিচ্ছেন বিজেপিতে। বুধবারও আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করলেন মুসলিম সম্প্রদায়ের অনেক পুরুষ ও মহিলা। তাঁদের দাবি তাঁরা আরও তাঁদের সম্প্রদায়ের বহুজনকে যোগদান করাবেন।

নন্দীগ্রামের টেঙ্গুয়াতে একটি সভা ঘরে এই যোগদান পর্ব চলে। নন্দীগ্রাম ১ নম্বর ব্লকের পূর্ব মণ্ডল এবং উত্তর মণ্ডলের উদ্যোগের এই যোগদান পর্ব সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপির তমলুক সাংগঠনিক জেলা সহসভাপতি প্রলয় পাল, পূর্ব মণ্ডলের সভাপতি ধনঞ্জয় ঘোড়া, সাধারণ সম্পাদক শংকর ধাড়া, সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি জবেদ খাঁ, উত্তর মণ্ডলের সভাপতি গৌতম দাস, সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি শেখ হাবিব প্রমুখ।

শেখ আবদুল্লা, শেখ ইরান, সাগিরা বিবি, শেখ সোলেমান, জাহানারা বিবি, কুসুম বিবি প্রমুখ যোগদানকারীদের বক্তব্য, ‘তৃণমূল সরকার ভুল বোঝাচ্ছে মুসলিমদের। বিজেপি সাম্প্রদায়িক দল নয়। আমরা ব্যক্তিগতভাবে বিজেপির কাছ থেকে নানা রকম সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছি। তৃণমূলের নেতারা আমফান-সহ একাধিক ক্ষেত্রে টাকা আত্মসাৎ করছে অথচ আমরা গরিব মানুষ কিছুই পাচ্ছি না। মোদিজীর কাজকর্ম দেখে আমরা বিজেপিতে যোগদান করেছি।’

একুশের ভোট যতই এগিয়ে আসছে পরিবর্তনের আঁতুড় ঘর নন্দীগ্রামে বিজেপি ততই শক্তিশালী হচ্ছে। নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মানুষের আস্থা অর্জন করছে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষ্যে সেবা সপ্তাহ পালনে নন্দীগ্রামে প্রায় প্রতিটি এলাকায় বৃক্ষ রোপন, রক্তদান শিবির, বস্ত্র বিতরণ প্রভৃতি কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

তমলুক জেলা সাংগঠনিক সহ-সভাপতি প্রলয় পাল বলেন, “যতই বিধানসভা নির্বাচন এগিয়ে আসছে ততই বিজেপি দল আরো শক্তিশালী হচ্ছে। মানুষ বুঝে গেছেন একুশের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ দখল নেবে বিজেপি। তাই তৃণমূল শিবিরে ভাঙন অব্যাহত থাকবে। এর আগেও নন্দীগ্রামে বহু মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ বিজেপিতে যোগদান করেছেন। আজকে প্রায় একশো জন মুসলিম সম্প্রদায়ের পুরুষ ও মহিলা বিজেপিতে যোগদান করলেন। আগামী দিনে আরও যোদগান করবেন। নন্দীগ্রামে তৃণমূল কংগ্রেসের চোর-ডাকাতের খেলা দেখতে দেখতে মানুষ ওঁদের প্রতি আস্থা হারিয়ে বিজেপির দিকে এগিয়ে আসছে। নন্দীগ্রাম থেকে একুশের ভোটে বিজেপির বিধায়ক নবান্নে যাচ্ছে তা একেবারেই নিশ্চিত।”

Related Articles

Back to top button
Close