fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

দেশে ৩৮ হাজার আক্রান্ত একদিনে, সুস্থ হয়েছেন সাড়ে ৭ লক্ষের বেশি মানুষ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: লকডাউন, সামাজিক দূরত্ববিধি কোনও কিছুই বাগে আনতে বাড়ছে না সংক্রমণকে। প্রতিদিন ঝড়ের গতিতে বেড়ে চলেছে আক্রান্তের হার। সংক্রমণের নিরিখে এখনও বিশ্বে তৃতীয় স্থানে ভারত। উপরে শুধুমাত্র আমেরিকা এবং ব্রাজিল। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে COVID-19 আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৩৮ হাজার মানুষ। গত সোমবার নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন ৪০ হাজারের বেশি মানুষ। তবে সে তুলনায় মঙ্গল এবং বুধবার পরপর দুদিন আক্রান্তের সংখ্যাটা খানিকটা হলেও কম। তাছাড়া আক্রান্তের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সুস্থতার হারও।

বুধবার সকালে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৭ হাজার ৭২৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ লক্ষ ৯২ হাজার ৯১৫ জন। এদের মধ্যে ৭ লক্ষ ৫৩ হাজার ৫০ জন ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। শুধু গত ২৪ ঘন্টাতেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন প্রায় ৩০ হাজার মানুষ। যা স্বস্তি দিচ্ছে কেন্দ্রকে। এখনও চিকিৎসাধীন ৪ লক্ষ ১১ হাজার ১৩৩ জন।

আক্রান্তের সংখ্যার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছেন ৬৪৮ জন। এর ফলে মোট মৃতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ২৮ হাজার ৭৩২ জনে। এদিকে গত কয়েক সপ্তাহে উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে করোনা পরীক্ষার সংখ্যাও। ইতিমধ্যেই দেশে ১ কোটি ৪৭ লক্ষের বেশি মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩ লক্ষ ৪৩ হাজারের বেশি মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন জানিয়েছে, আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ভারতে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে। বুলেটিন জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে উঠেছেন ২৮,৪৭২ জন। ভারতে মোট সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির সংখ্যা ৭,৫৩,০৫০ জন। এই মুহূর্তে দেশে সুস্থতার হার ৬৩.১৩ শতাংশ। অর্থাত্‍ এই মুহূর্তে দেশে কোভিড অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৪,১১,১৩০ জন।

আরও পড়ুন: কত হতে পারে করোনা ভ্যাকসিনের দাম? স্পষ্ট করলেন সিরামের কর্ণধার

ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা সবথেকে বেশি মহারাষ্ট্রে। এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৩,২৭,০৩১ জন। মহারাষ্ট্রে কোভিডে মারা গিয়েছেন ১২,২৭৬ জন। তবে এর মধ্যেই এই রাজ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১,৮২,২১৭ জন। অর্থাত্‍ এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্রে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ১,৩২,৫৩৮ জন। আক্রান্তের সংখ্যায় মহারাষ্ট্রের পরেই রয়েছে তামিলনাড়ু। দক্ষিণের এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ১,৮০,৬৪৩। মৃত্যু হয়েছে ২৬২৬ জনের। তারপরেই রয়েছে দিল্লি। রাজধানীতে এই মুহূর্তে আক্রান্ত হয়েছেন ১,২৫,০৯৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৬৯০ জনের।

চার নম্বরে উঠে এসেছে কর্নাটক। দক্ষিণের এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৭১,০৬৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৪৬৪ জনের। গুজরাতকে টপকে পাঁচ নম্বরে উঠে এসেছে উত্তরপ্রদেশ। এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৩,২৮৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ১২২৯ জনের। গুজরাতে আক্রান্ত হয়েছেন ৫০,৩৭৯ জন। মারা গিয়েছেন ২১৯৬ জন। মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লি, কর্নাটক, উত্তরপ্রদেশ ও গুজরাত, এই ছয় রাজ্যেই মোট আক্রান্তের সংখ্যা আট লাখের বেশি। এই রাজ্যগুলি মিলিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৮,০৭,৫০৬ জন। এই সংখ্যা দেশের মোট আক্রান্তের ৬৭.৬৯ শতাংশ।

Related Articles

Back to top button
Close