fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

একুশের লড়াই, লোকসভার নিরিখে নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে বিজেপি, প্রার্থী কি ফের আলি হোসেন?

মোকতার হোসেন মন্ডল:

২০১৬ বিধানসভার ফল

তৃণমূল কংগ্রেস: ৯৩২৫৭
সিপিএম: ৭৭১০০
বিজেপি: ২১৫২৪

২০১৯ লোকসভার ফল

তৃণমূল কংগ্রেস: ৮৬০১৮
বিজেপি: ১০৪৫৪৩
ফরওয়ার্ড ব্লক: ৭৬৭৯
কংগ্রেস: ৩৪৩২

আগামী ২০২১ সালের নির্বাচনে কোচবিহার জেলার নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে শাসক তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে মূল লড়াই হতে পারে। ২০১৯ সালের লোকসভার ফলাফল দেখলে এমনটাই আন্দাজ করা যায়। যদিও ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটের নিরিখে বিজেপি এই কেন্দ্রে তৃতীয় স্থানে আছে।

জানা যাচ্ছে, এই বিধানসভার বেশিরভাগ মানুষ কৃষির উপর নির্ভরশীল। অনেকে দিন মজুরের কাজ করে। বিভিন্ন রাজ্যে এখানকার শ্রমিকদের দেখা মেলে। এখানে দুটি ব্লক আছে, কোচবিহার-১ সিডি ব্লক ও তুফানগঞ্জ-১ সিডি ব্লক। দেওনহাট, দাওয়াগুড়ি, গুড়িয়াহাটি-১, গুড়িয়াহাটি-২, জিরানপুর কোচবিহার-১ সিডি ব্লকের অন্তর্ভুক্ত।অন্যদিকে অন্দারন ফুলবাড়ি, বলরামপুর-১, বলরামপুর-২, চিলাখানা-১, চিলাখানা-২, দেওচড়াই, ঢালপাল-২, মারুগঞ্জ, নাটাবাড়ি-১, নাটাবাড়ি-২ গ্রাম পঞ্চায়েত গুলি তুফানগঞ্জ-১ সিডি ব্লকের অন্তর্গত। এটি নদী বহুল বিধানসভা।

দীর্ঘদিন ধরে নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের মধ্যে লড়াই হয়েছে। কিন্তু কংগ্রেসের প্রভাবশালী নেতারা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার ফলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের উত্থান হয়। ২০১৬ সালের বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেসের প্রভাবশালী নেতা রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ৯৩২৫৭ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন। সেবার সিপিএমের তমসের আলি ৭৭১০০ ও বিজেপির আলি হোসেন ২১৫২৪ ভোট পেয়েছিলেন। সেবার কেন্দ্রে বিজেপি সরকার থাকলেও বিধানসভা ভোটে রাজ্যের অন্য কেন্দ্রের মতো এখানেও মোদি ম্যাজিক কাজে লাগেনি। কিন্তু ২০১৯ লোকসভার ফল ছিল বিজেপির জন্য চমকে দেওয়ার মতো। তৃণমূল কংগ্রেস থেকে নিশীথ প্রামানিক বিজেপিতে আসতেই হাওয়া বদলে যায়। লোকসভায় তৃণমূল কংগ্রেস ৮৬০১৮ ভোট পেয়েছিল। আর যে বিজেপি ২০১৬ সালে ২১ হাজার ৫২৪ ভোট পেয়েছিল, সেই দল বছর তিনেকের ব্যবধানে ১০৪৫৪৩ ভোট পায়। আর বামফ্রন্ট অর্থাৎ ফরওয়ার্ড ব্লক ৭৬৭৯ এবং কংগ্রেস ৩৪৩২ ভোট পায়।

২০১৬ সালে সিপিএম পেয়েছিল ৭৭১০০ ভোট। কিন্তু বামেদের এই বিপুল সংখ্যক ভোট কোথায় গেল? স্থানীয় মানুষ বলছেন, এদের অনেকেই বিজেপিকে ভোট দিয়েছে। তবে আগামী ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটে বাম-কংগ্রেস জোট একটা গুরুত্বপূর্ণ লড়াই দিতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন। যদিও নাটাবাড়ির বিভিন্ন এলাকায় কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে, মূলত লড়াই হবে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে। কিন্তু কোন দলের কে প্রার্থী হবেন? তৃণমূল কংগ্রেসের বর্তমান বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ঘোষ নাকি অন্য কেউ প্রার্থী হবেন সেটা এখনো স্পষ্ট নয়। তবে শোনা যাচ্ছে,বিজেপির প্রার্থী হতে পারেন আলি হোসেন। তিনি রাজ্য বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার রাজ্য সভাপতি। তাছাড়া তিনি গত বিধানসভায় এই কেন্দ্রের প্রার্থী ছিলেন। ভূমিপুত্র হওয়ার ফলে স্থানীয় মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বেশি। যদিও শেষমেশ কে প্রার্থী হন তা ঠিক করবেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

নাটাবাড়ি বিধানসভায় রাজবংশী, মুসলিম ছাড়াও বাংলাদেশ থেকে আগত উদ্বাস্তু হিন্দু আছে। নির্বাচনে এই তিন সম্প্রদায়ের ভোট বেশ গুরুত্বপূর্ণ। স্থানীয় মানুষ বলছেন, এখানে নদী ভাঙন একটা বড় সমস্যা যার সমাধান হওয়া জরুরি। সেই সঙ্গে প্রয়োজন, শিল্প,মাল্টিপারপাস হিমঘর, গ্রামীন এলাকায় কলেজ প্রয়োজন।

Related Articles

Back to top button
Close