fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

আর্থিক সংকটে রাষ্ট্রপুঞ্জ, ইয়েমেনে বন্ধ জরুরি স্বাস্থ্য পরিষেবা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: মহামারী করোনাকালে আর্থিক সংকটে পড়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। তাই, সেপ্টেম্বরের শুরুতে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে প্রাণদায়ী জরুরি স্বাস্থ্যসেবা কর্মসূচির ৭০ শতাংশই বন্ধ করে দিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জ। রবিবার এমনই গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়েছে রাষ্ট্রপুঞ্জে জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) ইয়েমেন শাখ। এক টুইট বার্তায় ইউএনএফপিএ লিখেছে, ‘তহবিলের সংকটের কারণে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ইয়েমেনে রাষ্ট্রপুঞ্জের জনসংখ্যা তহবিলের প্রাণদায়ী ৭০ শতাংশ জরুরি স্বাস্থ্যসেবা কর্মসূচি বাতিল করা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, কয়েকবছর ধরে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেনে নাগরিক স্বাস্থ্য ও জরুরি কল্যাণ বিভাগে কাজ করে যাচ্ছে রাষ্ট্রপুঞ্জের একাধিক সংস্থা। দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার ভগ্নদশায় কিছুটা প্রলেপ দিচ্ছিল এই প্রচেষ্টা। এরই মাঝে দেখা দিয়েছে মহামারী করোনা সংক্রমণ। ফলে, জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা আরও সংকটে পড়েছে। এমতবস্থায়, রাষ্ট্রপুঞ্জের সহযোগিতা তুলনামূলক ভাবে বেশি প্রয়োজন। কিন্তু, পরিস্থিতি ভিন্ন। গত তিন সপ্তাহ আগে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে রাষ্ট্রপুঞ্জ জানিয়েছে, ‘ফেব্রুয়ারিতে ইয়েমেন সংকট নিয়ে এক ইভেন্টে রাষ্ট্রপুঞ্জ ও মানবিক অংশীদারদের দুই কোটিরও বেশি ইয়েমেনির জরুরি প্রয়োজন মেটাতে, ২৬০ কোটি ডলারের প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল। আজ অবধি, এই এর অর্ধেকেরও কম হাতে পেয়েছি আমরা।’ একইসঙ্গে, চলমান পরিস্থিতি তুলে ধরে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ইয়েমেনে রাষ্ট্রপুঞ্জের ৩৪টি প্রধান মানবিক কর্মসূচির মধ্যে কেবল তিনটিই পুরো বছরের জন্য অর্থায়ন করে। বেশ কয়েকটি সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলিতে বন্ধ হয়ে গেছে। এ ছাড়া দরিদ্র ও ক্ষুধার্ত পরিবারগুলোকে সাহায্যের জন্য অনেক বড় আকারের প্রকল্পগুলোও শুরু করা যাচ্ছে না।’

এদিকে, তহবিল না পেলে আগামী দুই মাসের মধ্যে আরও ২২টি প্রাণদায়ী কর্মসূচি বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন ইয়েমেনে রাষ্ট্রপুঞ্জের মানবাধিকার সমন্বয়ক লিসা গ্রান্ডে। তিনি বলেছেন, ‘যে তহবিল দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছে তা পাওয়ার জন্য আমরা মরিয়া। কেননা অর্থ বরাদ্দ যদি না আসে তাহলে মানুষগুলি মারা যাবে। এই পরিস্থিতিতে আমরা সবাই লজ্জিত। এটা খুবই হৃদয়বিদারক ঘটনা। নিজের চোখে এসব পরিবারকে এভাবে থাকতে দেখে তাদের কিভাবে বলা যায় যে, তোমাদের সাহায্য করার মতো কোনো অর্থ আমাদের নেই।’

Related Articles

Back to top button
Close