fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আবহের মধ্যেই মা হারা পূজার অন্নপ্রাশন হল রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে

শান্তনু চট্টোপাধ্যায়, রায়গঞ্জ:  করোনা সংক্রমণের ভয়াল আবহের মধ্যেই জীবনের জয়গানের সুর ছড়িয়ে পড়লো রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। বুধবার সকাল থেকেই সাজোসাজ রব হাসপাতালের প্রসুতি বিভাগে। নানারঙের বেলুল ও রকমারী রিবনে সেজে উঠেছিলো এই বিভাগ। থালায় সাজানো পঞ্চ ব্যঞ্জন, পায়েস,চাটনী, মিষ্টি আর আশীর্বাদের জন্য ধান,দুর্বা,প্রদীপ। যার জন্য এতো আয়োজন সিস্টার ও হাসপাতাল কর্মীদের, তার নাম পূজা। বয়স মাত্র ৬ মাস। মায়ের অনুপস্থিতিতে আজ এভাবেই পূজার অন্নপ্রাশন অনুষ্ঠানে সামিল হলেন হাসপাতালের নার্স,কর্মীরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে প্রায় একবছর আগে গর্ভবতী মানসিক ভারসাম্যহীন এক মহিলাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে রায়গঞ্জের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্যরা। এখানেই এক কন্যা সন্তানের জন্ম দেন তিনি। পরিবাবের কোনো সদস্য যোগাযোগ না রাখায় হাসপাতালের নার্স ও কর্মীদের কোলেই বড় হতে থাকে এই শিশু সন্তান। নাম রাখা হয় পূজা। এতদিন ছোট্ট মেয়েটির সমস্ত আবদার,জামাকাপড় কাঁচা, স্মান করানো সবই পালা করে করছন নার্স,আয়া মাসী ও কর্মীরা। কিন্তু দিনচারেক আগে ওয়ার্ড থেকে উধাও হয়ে যায় শিশুটির মা।

আরও পড়ুন: রাজ্যের দুই শহিদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা সাহায্য, সঙ্গে সরকারি চাকরি, ঘোষণা মমতার

কিন্তু তাই বলে তো পূজার অন্নপ্রাশনের অনুষ্ঠান বন্ধ করা যায় না। সকলে মিলে ঠিক করে ওয়ার্ডেই হবে অনুষ্ঠান। সেই মতো নার্সিং স্টাফরা বাড়ি থেকে রান্না করে আনেন নানান নানারকম খাবারের পদ। হাসপাতাল কর্মীরা লেগে পড়েন ফুল,বেলুন দিয়ে ওয়ার্ড সাজাতে। এরপর ডাক্তার বাবু,নার্সিং স্টাফরা প্রানভরে আশীর্বাদ করেন ছোট্ট পূজাকে। নিজের মা নাথাকার অভাব টা হয়তো বোজেনি এই শিশু। তবে এতো বেলুন, খাবার আর সকলের অকৃত্রিম ভালোবাসায় মাঝেমধ্যেই খিলখিলিয়ে হেসে উঠেছে সে।

হাসপাতালের এ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার সৌমাশীষ রাউত বলেন,” শিশুটি ছয়মাস ধরে এখানেই আছে। তার খাওয়া ও মেডিসিনের সব ব্যবস্থা এখান থেকে হয়েছে। বাঙালী ঘরের নিয়ম মেনে সিস্টার দিদিরা আজ তার অন্নপ্রাশনের আয়োজন করেছেন। সাধুবাদ জানাই এই উদ্যোগকে। পরবর্তীতে আমরা শিশুটিকে জেলা চাইল্ড ওয়েলফেয়ার সোসাইটির হাতে তুলে দেবো। হাসপাতালের নার্স ও কর্মীরা এতদিন সযত্নে বড় করে তুলেছে যে শিশুটিকে আজ তার অন্নপ্রাশনের আয়োজন করতে পেরে খুশী সকলেই।

Related Articles

Back to top button
Close