fbpx
কলকাতাখেলাফুটবলহেডলাইন

ক্রীড়াজগতে নক্ষত্রপতন, প্রয়াত ফুটবলার ও কোচ সুভাষ ভৌমিক

ট্যুইটে শোকজ্ঞাপন মুখ্যমন্ত্রী্র, পতাকা অর্ধনমিত রাখা হল মোহনবাগান ও ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করলেন কিংবদন্তি ফুটবলার ও কোচ সুভাষ ভৌমিক। শনিবার সকালে জীবনাবসান হয় তাঁর।  দীর্ঘদিন ধরেই কিডনির সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। সাড়ে তিন মাস ধরে ডায়ালিসিস চলছিল তাঁর। শুক্রবার রাত থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি শুরু হয়। শোকস্তব্ধ ময়দান। তাঁর মৃত্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও একাধিক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে ক্রীড়া জগতের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা শোকজ্ঞাপন করেন।

ভারতের জাতীয় দলের হয়ে ৬৯ টি ম্যাচ খেলেছেন সুভাষ ভৌমিক।  দুর্দান্ত খেলোয়াড়ের পাশাপাশি কোচ হিসেবে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে সকলের কাছে।

প্রবাদপ্রতিম ও আর্শিয়ান কাপ জয়ী কোচ সুভাষ ভৌমিক। সম্প্রতি তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। সেই অনুযায়ী তাকে ইকবালপুরের একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করা হয়। যদিও চিকিৎসকদের সব চেষ্টা ব্যর্থ করে শনিবার ভোররাতে ৭৩ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ইস্টবেঙ্গলকে আই লিগ জেতানো কোচ সুভাষ ভৌমিক। দীর্ঘদিন ধরেই কিডনির অসুখে ভুগছিলেন কোচ সুভাষ ভৌমিক। জানা গিয়েছে, বিগত তিনমাস ধরে তার ডায়ালাইসিস চলছিল। মাঝে তার বুকে সংক্রমণ হয়েছিল।

মুখ্যমন্ত্রী ট্যুইট করে লিখেছেন, ‘বিশিষ্ট  ফুটবলার ও কোচ সুভাষ ভৌমিকের  প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৭৩ বছর। সুভাষ ভৌমিক ইস্ট বেঙ্গল, মোহনবাগান ক্লাব ছাড়াও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে ভারতের  প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ১৯৭০ সালে এশিয়ান গেমসে তিনি যে ভারতীয় দলের সদস্য ছিলেন, সেই দল ব্রোঞ্জ পদক লাভ করে। এছাড়াও তিনি কলকাতার তিন প্রধান ফুটবল টীমের কোচের দায়িত্ব সুচারু ভাবে পালন করেছেন। পশ্চিমবঙ্গ সরকার ২০১৩ সালে তাঁকে ‘ক্রীড়াগুরু’  সম্মানে ভূষিত করে। তাঁর প্রয়াণে ক্রীড়া জগতের এক অপূরণীয় ক্ষতি হল। আমি সুভাষ ভৌমিকের পরিবার-পরিজন ও  অনুরাগীদের  আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি’।

কোভিড প্রোটোকল মেনে নিমতলা ঘাটে সম্পন্ন হয় কিংবদন্তী ফুটবলার কোচ সুভাষ ভৌমিকের শেষকৃত্য। এদিন রাজ্য সরকারের তরফ থেকে তাঁর শেষকৃত্যে শামিল হন ফিরহাদ হাকিম ও ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

কিংবদন্তী এই ফুটবলার তিনি তাঁর খেলার ক্যারিয়ারে, কলকাতা ফুটবল ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগানের “বিগ টু” এর প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। এছাড়াও তিনি ১৯৭০ থেকে ১৯৮৫ সালের মধ্যে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। সুভাষ ভৌমিক ইস্টবেঙ্গল এফসি-তে যোগ দেন। ১৯৬৯ সালে। তার পর ১৯৭০ সালে মোহনবাগানে যোগ দেন। ১৯৭৩ সালে মোহন বাগানে ইস্ট বেঙ্গলে ফিরে আসেন এবং ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত তাদের প্রতিনিধিত্ব করেন, তারপরে তিনি মোহনবাগানে পুনরায় যোগ দেন। সুভাষ

ভৌমিক বিভিন্ন টুর্নামেন্টে ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তিনি ভারতীয় ফুটবল দলের সদস্য ছিলেন, যেটি ১৯৭০ সালে এশিয়ান গেমসে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছিল। সুভাষ ভৌমিকের মৃত্যুতে আজ মোহনবাগান, ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবের পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close