fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শনিবার থেকে ঘোজাডাঙ্গা দিয়ে ভারত-বাংলাদেশ বানিজ্য শুরু

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: স্বস্তির হাওয়া সীমান্তের ব্যবসায়ী থেকে শ্রমিক ও পরিবার। লকডাউনের ৮৭ দিন পর চালু হচ্ছে ঘোজাডাঙ্গা সীমান্ত বানিজ্য। দেশের দ্বিতীয় বৃহৎ তম স্থলবন্দর চালুর দাবিতে ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তের ব্যবসায়ীরা ইছামতি ব্রিজের সম্মুখে ইটিন্ডা রোডে পথ সভা করেন ১৭ ই জুন। ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের আটটা স্থলবন্দর রয়েছে। ইতিমধ্যে হিলি, পেট্রোপোল, ফুলবাড়ী সহ সাতটি বন্দর খুলে গেল‌ও। বসিরহাট মহাকুমার বসিরহাট থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের ঘোজাডাঙ্গা স্থলবন্দর এখনো বন্ধ। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর। লকডাউনে ৮৭ দিন কেটে গেল এখনো ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তে আমদানি ও রপ্তানি করতে পারছেননা ২০০০ ব্যবসায়ীর সঙ্গে প্রায় লক্ষাধিক কর্মী। এর সঙ্গে পরোক্ষ ও প্রত্যক্ষ ভাবে উপকৃত হবেন।

ইতিমধ্যে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে জেলাশাসক, নবান্নের স্বরাষ্ট্র সচিব কে জানানো হয়েছিল। কিন্তু কোন কাজ না হওয়ায় বাধ্য হয়ে পথে নেমেছি। ঘোজাডাঙ্গা আমদানি-রপ্তানি সংস্থার সদস্য মিহির ঘোষ বলেন, ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে কয়েক লক্ষ পরিবার আমরা এই সীমান্ত আমদানি রপ্তানি ব্যবসার সঙ্গে পরোক্ষ বা প্রত্যক্ষভাবে যুক্ত আছি। রাজ্যের সাতটি স্থলবন্দর চালু হলোও ঘোজাডাঙ্গা সীমান্ত বাণিজ্যে এখন বন্ধ। যার ফলে বিপাকে পড়েছিল সীমান্ত বাণিজ্যের ব্যবসায়ী থেকে কর্মীরা। আজ শুক্রবার বিকেল বেলা ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তে বসিরহাটের মহকুমার শাসক বিবেক ভস্মে, এসডিপিও অভিজিৎ সিনহা মহাপাত্র, বিএসএফের ১৫৩ নম্বর ব্যাটালিয়নের আধিকারিক ও শুল্ক দফতরের আধিকারিকরা জরুরি বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেন আগামীকাল শনিবার ঘোজাডাঙ্গা ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের আমদানি ও রপ্তানি সীমান্তবানিজ্য চালু হবে।

আরও পড়ুন: মালদায় মরশুমের শুরুতেই গঙ্গা ভাঙন, বিপাকে কয়েকশো পরিবার

ইতিমধ্যে ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তে ১৬০০পণ্যবাহী ট্রাক দাঁড়িয়ে আছে বাংলাদেশ যাওয়ার জন্য, সীমান্তবানিজ্য চালু হওয়ায় খুশি সীমান্তে ব্যবসায়ী থেকে কর্মীরা। পাশাপাশি এদিন ঘোজাডাঙ্গা সীমান্তের প্রশাসনিক বৈঠকে উঠে আসে করোনা মোকাবিলায় সবরকম বিধি-নিষেধ মেনে চলতে হবে। ট্রাকচালক ও খালাসিদের স্বাস্থ্যপরীক্ষা শারীরিক তাপমাত্রা মাপতে হবে। এবং দ্রুত কেউ অসুস্থ বোধ করলে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠাতে হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ থেকে আমদানি যেসব পণ্যবাহী ট্রাক এদেশে ঢুকবে তাদেরকে পর্যাপ্ত পরিমাণে স্যানিটেশন করতে হবে চালক খালাসিদের শারীরিক পরীক্ষা করতে হবে। তার জন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা নির্ধারিত সময়সূচি মেনে এই ব্যবস্থা করবেন। ঘোজাডাঙ্গা ক্লিয়ারেন্স এর পক্ষ থেকে ট্রাইভাগো হেলপারের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে স্যানিটাইজার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঘোজাডাঙ্গা জরুরি বৈঠকের পর বাংলাদেশ কাস্টম সিএসএস স্বাস্থ্য দপ্তর এবং উচ্চপদস্থ আধিকারিক দের সঙ্গে কথা বলেন, এবং ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে যাতে বাণিজ্য আগামীকাল শনিবার থেকে শুরু করা যায় তার জন্য সব রকম ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close