fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

মস্কোয় ফের চিনের মুখোমুখি ভারত

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দু’দেশের উত্তেজনার মধ্যেই বৃহস্পতিবার মস্কোয় মুখোমুখি হতে চলেছেন ভারত-চিনের দুই বিদেশমন্ত্রী। সাংহাই সহযোগিতা সংস্থার বৈঠকে যোগ দিতে দুই বিদেশমন্ত্রীই এখন মস্কোয় রয়েছেন। দুই মন্ত্রীই রাশিয়া-ভারত-চীনের বিদেশমন্ত্রীদের মধ্যাহ্নভওজের বৈঠকেও যোগ দেবেন।

বুধবার রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সার্জে ল্যাভর বলেছেন, ‘সকল ক্ষেত্রে কৌশলগত অংশীদারিত্বের বিকাশ, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করার একটি সুযোগকে অত্যন্ত প্রশংসা করি।’চিনা বিদেশমন্ত্রকের তরফে বলা হয়েছে, রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সার্জে ল্যাভরয়ের উদ্যোগে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর চিনা বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ই-এর সঙ্গে বৈঠক করবেন। উল্লেখ্য, গালওয়ানে হিংসার পর রাশিয়ার হস্তক্ষেপেই প্রতিবেশী দুই দেশের বিদেশমন্ত্রীর ফোনে কথা হয়েছিল। কিন্তু প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় পরিস্থিতি ভাল হওয়ার চেয়ে আরও জটিল হয়ে যায়।

সোমবার প্যাংগং হ্রদের দক্ষিণ তীরে নতুন করে ভারত-চিন সংঘাতের মধ্যে, যখন চিনা সেনা বর্শা ও রাইফেল হাতে ভারতের ফরোয়ার্ড পোস্টের কাছে আসার চেষ্টা করে গালওয়ান উপত্যকার ১৪ই জুনের সংঘর্ষের মত হাতাহাতি যুদ্ধের চেষ্টায়, এই আবহে বৈঠকে মুখোমুখি হবেন জয়শঙ্কর-ওয়াং। গালওয়ানের সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা শহিদ হয়েছিলেন। দীর্ঘ ৪৫ বছর পরে সোমবারে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় গুলিও চলেছিল।

ভারত জানিয়েছিল, চিনা সৈন্য পিছিয়ে যেতে বাধ্য হয়, তখনই শূন্যে গুলি ছোঁড়ে। চিন দাবি করেছিল, ভারতীয় সেনা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা পেরোনোর পর গুলি ছোঁড়ে। যা ভারত স্পষ্টভাবে অস্বীকার করে। গত সপ্তাহে জয়শঙ্কর পূর্ব লাদাখে পরিস্থিতি গুরুতর বলে বর্ণনা করেছিলেন। তিনি দুপক্ষের মধ্যে রাজনৈতিক স্তরে গভীরতর আলাপ-আলোচনার ডাকও দিয়েছিলেন।

আরও পড়ুন: মোদির ৭০তম জন্মদিন উপলক্ষে ৭০ সংকল্প বিজেপির

গত শুক্রবারে মস্কোয় এসসিও-র আরেকটি বৈঠকের সাইডলাইনে প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং চীনা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী ওয়েই ফেঙ্ঘেই-এর সঙ্গে বৈঠক করার ৩ দিন পরেই সর্বশেষ ঘটনাগুলি ঘটে। রাজনাথ সিং তখন ওয়েই-কে বলেন, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর একপাক্ষিকভাবে স্থিতাবস্থা বদলের চিনা বাহিনীর প্রয়াস দ্বিপাক্ষিক চুক্তির লঙ্ঘন। এবং প্যাংগং হ্রদ সহ সমস্ত সংঘাতের এলাকাগুলি থেকে সৈন্য সরাতে বেজিংয়ের উচিত নিউ দিল্লির সঙ্গে কাজ করা।

এদিকে রিক গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলির বৈঠকে রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সার্গেই ল্যাভরভ দুই দেশকে কোনও বার্তা দেন সেটার দিকেও নজর রয়েছে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। কারণ ভারত ও চিন, উভয়ের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক রয়েছে রাশিয়ার। তবে সীমান্ত সমস্যা নিয়ে চিন ও ভারতের মধ্যে নিজে থেকে কোনওরকম হস্তক্ষেপ করবে না রাশিয়া। এমনটাই ওয়াকিবহাল মহলের অভিমত। তবে পুতিনের দেশের আশা, ভারত ও চিনের মধ্যে সীমান্ত সমস্যা নিয়ে যে সংঘাত শুরু হয়েছে তা দুই দেশ নিজেদের মধ্যেই গণতান্ত্রিক উপায়ে আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে ফেলবে। তবে দুই দেশ চাইলে মস্কো মধ্যস্থতার আসরে নামবে, এমনটাই জানানো হয়েছে রাশিয়ার তরফে।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close