fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

ভারতেই বিপন্ন হিন্দুরা, বিস্ফোরক অভিযোগ ভিএইচপি’-র, তদন্তের দাবি

ইন্দ্রাণী দাশগুপ্ত, নয়া দিল্লি: পাকিস্তান বাংলাদেশের অনুকরণে এবার ভারতেও বিশেষ কিছু রাজ্যে মারাত্মকভাবে চলেছে হিন্দুদের জোর করে ধর্মান্তরিত করার জঘন্য ষড়যন্ত্র বলে সম্প্রতি অভিযোগ করেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। কখনও প্রাণ ভয় দেখিয়ে কখনও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার ভয় দেখিয়ে বা কখনও লাভ জিহাদের নাম করে ধীরে ধীরে হিন্দু সম্প্রদায়কে শেষ করে দেওয়ার কাজ করছে কিছু জিহাদিরা বলে সরব হয়েছেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের আন্তর্জাতিক সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন। বিপন্ন হিন্দুত্বকে বাঁচাতে এবার কেন্দ্রীয় সরকারের এবং হরিয়ানা সরকারের দ্বারস্থ হলেন তারা। তাদের দাবি অবিলম্বে ধর্মান্তরণ আইনের পরিবর্তন করে হিন্দুদের দেশ ভারতবর্ষে যাতে হিন্দুরা সুরক্ষিত থাকতে পারেন সেই ব্যবস্থা করতে হবে সরকারকে।

সুরেন্দ্র জৈনের মতে বেশ কিছু জিহাদি দীর্ঘদিন ধরে ধীরে ধীরে হিন্দু সমাজকে শেষ করে দেওয়ার প্রচেষ্টা করছে। লাভ জিহাদ এবং জমি জিহাদের মাধ্যমে ধীরে ধীরে নির্মূল করে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে হিন্দুত্বকে বলে দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, বাংলা বিহার এবং হরিয়ানার বিভিন্ন অঞ্চলে জোর করে এবং লাভ জিহাদের নামে হিন্দু মেয়েদের অন্য ধর্মে ধর্মান্তরিত করার কাজ চলেছে। পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ যে এই সমস্ত অঞ্চলে হিন্দু মেয়েরা ঘর থেকে বের হতে ভয় পান।

প্রতি মুহূর্তে তাদেরকে বিভিন্নভাবে বিরক্ত করা হয় যা প্রতিমুহূর্তে শালীনতার সীমা লঙ্ঘন করে যায়। দলিত আদিবাসী সম্প্রদায়ের সঙ্গে ও অত্যাচার এবং নির্যাতন চলে মাত্রাহীন ভাবে। সুরেন্দ্র জানান, সম্প্রতি একটি আদিবাসী পরিবারে বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল হরিয়ানার মেরাটে। জিহাদিরা অনুষ্ঠানের দিন পুরো অনুষ্ঠানস্থল থেকে লন্ডভন্ড করে যায় এবং বাড়ির প্রত্যেককে প্রচন্ড পরিমাণে মারধর করে। তাদের দাবি ছিল পুরো পরিবারটিকে ধর্মান্তরিত হতে হবে। এরা এখন এতটাই বলশালী হয়ে গেছে যে যদি কোনও হিন্দু পরিবার এদের কথা শুনতে রাজি না হয় তাহলে তাহাদের সম্পত্তি জোর করে দখল করে নিতে যেকোনও ধরনের অপরাধ সংগঠিত করতেও ও পিছপা হচ্ছে না এরা।

বিশেষত হরিয়ানাতে এই অত্যাচার সমস্ত সীমারেখা ছাড়িয়ে গেছে। সুরেন্দ্র জৈন অভিযোগ করেন, হরিয়ানার মিরাট অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে হিন্দুদের উপরে বিভিন্ন ধরনের অত্যাচার চলছে। হিন্দু মেয়েদের জোর করে ধর্মান্তরিত করা লাভ জিহাদের নামে তাদের বিয়ে করে অন্য ধর্মে পরিবর্তিত করা শুধু নয় হিন্দুদের জমি দখল মন্দির ভেঙে অন্য ধর্মস্থান তৈরি করা, শ্মশান দখল করা মত জঘন্য এবং অপরাধমূলক কাজ নির্বিচারে করে চলেছে জিহাদিরা। যার ফলে হরিয়ানার মিরাট অঞ্চলের ১০৩ টি গ্রাম হিন্দু শূন্য হয়ে পড়েছে। আরও ৮২টি গ্রাম হিন্দুদের সংখ্যা ৫ -এর নিচে নেমে গেছে। জিহাদিদের অত্যাচারের প্রাণ বাঁচাতে সম্পত্তি বাচাতে, ঘরের মেয়েদের মেয়েদের সম্মান বাঁচাতে হিন্দুরা ধর্মান্তরিত হয়ে যাচ্ছেন না হলে ওই অঞ্চল ছেড়ে বাড়িঘর জমি ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছেন অন্য শহরে।

সুরেন্দ্র জৈন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিহার পশ্চিমবঙ্গ এবং হরিয়ানার হিন্দুদের উপর এই ধরনের অত্যাচারের খবর আসছিল আমাদের কাছে। তাই আমরা প্রাক্তন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিডি বক্সীকে দিয়ে একটি তদন্ত করাই। সেখানে হরিয়ানার মিরাট অঞ্চলের এই চিত্র আমাদের সামনে উঠে আসে। আমরা বিশ্ব হিন্দু পরিষদ হরিয়ানা সকল সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টার এর সঙ্গে দেখা করেছি। তিনি আমাদের আশ্বস্ত করেছেন ভবিষ্যতে এই সমস্ত অঞ্চল গুলিতে যাতে এই ধরনের কোনও কাজ না হয় সেই দিকে কড়া নজর রাখবেন। এবং ধর্মান্তরণ আইনের বদলে এনে হিন্দুদের জোর করে অন্য ধর্মে ধর্মান্তরিত করার এই প্রচেষ্টা চিরতরে বন্ধ করবেন।

একইভাবে আমরা পশ্চিমবঙ্গ এবং বিহারের দিকেও নজর রাখছি। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে যে সরকার চলেছে তাদের শাসনকালে যেভাবে রোহিঙ্গাদের রাজ্যের আসার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অন্য ধর্মের ছেলেরা যেভাবে হিন্দু মেয়েদের প্রতি অশালীন ও অসম্মানজনক মন্তব্য করে চলেছেন সেটা অবিলম্বে বন্ধ করার জন্য আমরা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে অনুরোধ করেছি। পশ্চিমবঙ্গের গ্রামে-গঞ্জেও বিশেষত্ব বর্ডার অঞ্চলগুলিতে এইভাবে জোর করে হিন্দু মেয়েদের উপর হওয়া অত্যাচারের বিভিন্ন কাহিনি আমাদের কাছে আসছে।

লাভ -জিহাদের নাম করে এই সমস্ত অঞ্চল গুলিতেও বহু হিন্দু মেয়েকে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছে চুপিসারে। আমরা সবটাই কেন্দ্রীয় সরকারের নজরে এনেছি। করোনা সংকটকাল শেষ হয়ে যাওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গের এই বিষয়গুলি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার সদর্থক সমাধান সূত্র খুঁজে বের করবেন বলেই আমার বিশ্বাস।

Related Articles

Back to top button
Close