fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

ভারতের নতুন বিপদ ‘হরকত ৩১৩’ জেহাদি গোষ্ঠী! কাশ্মীরে বুনছে নাশকতার জাল  

নিজস্ব প্রতিনিধি: নতুন করে অশান্তি শুরু হয়েছে কাশ্মীরে (kashmir) । গত দু’সপ্তাহ ধরে উত্তপ্ত কাশ্মীর। শহিদ হচ্ছেন সেনা জওয়ানরা। এই নাশকতার কাজে যুক্ত কারা, তা নিয়ে তদন্তের জাল বহুদূর বিস্তৃত করেছেন ভারতীয় গোয়েন্দারা। সেখানে উঠে এসেছে নতুন তথ্য। প্রাথমিকভাবে গোয়েন্দাদের ধারণা ছিল, পাক সীমান্ত পেরিয়ে জইশ-ই মহম্মদ কিংবা লস্কর-ই-তইবার জঙ্গিরা হামলা চালাচ্ছে ভূস্বর্গে। কিন্তু ধারাবাহিক তদন্তের পর গোয়েন্দারা জানাচ্ছেন জইশ, লস্করদের পাশাপাশি সীমান্তে অত্যন্ত সক্রিয় হয়েছে ‘হরকত-৩১৩’ জঙ্গি গোষ্ঠী। তারাই বিদেশি জঙ্গি ঢোকাচ্ছে এদেশে। আর তাতেই প্রতিনিয়ত কাশ্মীরে রক্ত ঝরছে।

কী এই ‘হরকত ৩১৩’?

১৯৯৯ সালে ইলিয়াস কস্তুরির হাত ধরে জন্ম নিয়েছিল এই ব্রিগেড। সেই সময় পাকিস্তান ও পাক অধিকৃত কাশ্মীরেই সক্রিয় ছিল এই জঙ্গিগোষ্ঠী। তারা মূলত আল কায়দার হয়ে কাজ করত। বর্তমানে পাক সেনা, আইএসআই এবং তালিবানের হাক্কানি নেটওয়ার্কের মদতেই নিজেদের দ্রুত বদলে নিচ্ছে এই ‘৩১৩ ব্রিগেড’  শীতের আগেই কাশ্মীরে সন্ত্রাসবাদী ঢোকাচ্ছে এই গোষ্ঠী।জানা গিয়েছে, ইসলাম ধর্মের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এই ৩১৩ সংখ্যাটি। আলবদরের যুদ্ধে মহম্মদের সঙ্গী ছিলেন ৩১৩ জন। সেই সূত্র ধরেই জঙ্গি গোষ্ঠীর অত্যাধুনিক সংগঠনকে এই সংখ্যা দিয়ে চিহ্নিত করা হয়েছে। বর্তমানে তালিবানের সবচেয়ে ‘এলিট শাখা’ বদরি ৩১৩। যারা কাবুল শহর এবং বিমানবন্দরের নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছে। এই ব্রিগেডের ধাঁচেই নতুন করে সক্রিয় হচ্ছে ‘হরকত ৩১৩’।

তালিবানের অন্দরে হাক্কানি নেটওয়ার্কের বাড়বাড়ন্তের পরেই দেশের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়ে নয়াদিল্লি। তখন থেকেই কাশ্মীর সীমান্তে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরও আঁটোসাঁটো করা হয়। কিন্তু তা সত্ত্বেও সন্ত্রাস বন্ধ হয়নি। সূত্রের খবর, এই হাক্কানি নেটওয়ার্কে মধ্য এশিয়ার বিভিন্ন দেশের জেহাদিরা রয়েছে। রয়েছে চেচেনরাও। যারা অত্যাধুনিক অস্ত্র চালনা, যুদ্ধকৌশল রপ্ত করেছে। তারা অত্যন্ত ডাকাবুকো প্রকৃতির। এই জেহাদিদের নিয়েই তৈরি হয়েছে ‘হরকত ৩১৩’।

যাদের মূল লক্ষ্য কাশ্মীরের শান্তিভঙ্গ করা।শীতের কিছুটা আগে থেকেই কাশ্মীর জুড়ে প্রবল তুষারপাত হয়। তখন বেশ কিছুদিনের জন্য জঙ্গি অনুপ্রবেশের ঘটনা কম ঘটে। গোয়েন্দারা জানিয়েছেন সেই কারণে প্রতি বছরই শীতের আগে ভূস্বর্গে লাগাতার অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায় জেহাদিরা। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তবে জইশ, লস্কর, হিজবুলের পাশাপাশি সীমান্ত টপকে কাশ্মীরে ঢুকছে ‘হরকত ৩১৩’ জঙ্গিরা। এই বিষয়টি বাড়তি চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে নয়াদিল্লির। এই জঙ্গিগোষ্ঠী মানুষের ভিড়ে মিশে সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করছে। হামলা চালানোর পরিকল্পনা করছে ভারতীয় সেনাবাহিনীর উপর। সব মিলিয়ে ‘হরকত ৩১৩’ নিয়ে বাড়তি সতর্ক নিরাপত্তা বাহিনী।

Related Articles

Back to top button
Close