fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

লাদাখ অতীত,উত্তরাখণ্ডের লিপুলেখেও এবার ড্রাগণের উঁকিঝুকি, সতর্ক ভারত

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্কঃ লাদাখের পর উত্তরাখণ্ডের লিপুলেখ গিরিপথে ঘাঁটি গাড়তে শুরু করেছে লাল ফৌজ। ভারতীয় সেনার একটি সূত্র মারফত খবর, সেখানে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর চিন সেনার একটি ব্যাটেলিয়ান মোতায়েন করা হয়েছে। উত্তরাখণ্ডের চামিলি জেলার ওই গিরিপথের এলাকাতেই ভারত–নেপাল সীমান্ত রয়েছে। ভারতের কাছে এই এলাকা আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ কারণ গত জুন মাসেই নেপাল পার্লামেন্টে পাশ হয়েছে নতুন মানচিত্র বিল। সেই বিলে উত্তরাখণ্ডের কালাপানি ও লিম্পিয়াধুরার পাশাপাশি লিপুলেখ গিরিপথ–কেও নেপালের ভূখন্ডের অংশ বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। ফলে ওই এলাকায় নতুন করে চিন সেনা মোতায়েন তিন দেশের পারস্পরিক সম্পর্কে নতুন মাত্রা যোগ করবে, মনে করছে কূটনৈতিক মহল। সেনাসূত্র জানাচ্ছে, সেনা মোতায়েনের পাশাপাশি ভারী অস্ত্রশস্ত্রও নিয়ে আসা হয়েছে ওই এলাকায়। এছাড়া উত্তর সিকিম এবং অরুণাচল প্রদেশের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর তৎপরতা বাড়াচ্ছে বেজিং, এমনটাই দাবি সেনার সূত্রের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, তিব্বতের কৈলাস এবং মানস সরোবরে তীর্থযাত্রা করতে বহু ভারতীয় এই লিপুলেখ গিরিপথই যুগ যুগ ধরে ব্যবহার করে আসছে। তাঁদের যাতায়াতের সুবিধের জন্য ধরচুলা থেকে লিপুলেখ পর্যন্ত প্রায় ৮০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করছে ভারত। প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং সড়ক উদ্বোধন করতে যাওয়ায় কড়া বার্তা দিয়েছিল নেপাল। পূর্ব লাদাখের গালোয়ানের ঘটনার পর মাস দেড়েক কেটে গেলেও এখনও ডিএনগেজমেন্ট প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয়নি। সেনা সরানোর কাজে চিনের দিক থেকে গাফিলতি স্পষ্ট, প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব।

Related Articles

Back to top button
Close