fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আন্তর্জাতিক মানের জলদস্যু গ্রেফতার বসিরহাট থেকে

শ্যাম বিশ্বাস, উত্তর ২৪ পরগনা: বসিরহাট  মহাকুমার বসিরহাট থানার ধলতিথা গ্রামে নাম গোপন করে লুকিয়ে ছিল বাংলাদেশি জলদস্যু জনাব বাইন। সুন্দরবনের হেমনগর কোস্টাল থানা গত দুই মাস আগে ফারুক মোল্লা, ইউসুফ মোল্লা এই দুই জলদস্যুকে গ্রেফতার করার পর চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে। কালিন্দী রায়মঙ্গল নদীতে মৎস্যজীবীদের নৌকা লুটপাট, মারধোর, অপহরণ করে মুক্তিপণ চাইত এই দুষ্কৃতীরা। এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল পুলিশের কাছে।  সীমান্ত নদীগুলোতে জলদস্যুরা মৎস্যজীবীদের উপর লাগাতার হামলা চালাত। জনাব এর মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে বাংলাদেশের সাতক্ষীরা জেলা কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিকরা পুরো বিষয়টি উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাটের পুলিশ প্রশাসনকে জানায়।

[আরও পড়ুন- সালিশি সভায় জোড়া খুনে গ্রেফতার তৃণমূল নেতা]

জানা যায় যে, এই জলদস্যুদের  মূল পান্ডা জনাব বাইনের বাড়ি বাংলাদেশের সাতক্ষীরা জেলায়। বসিরহাট পুলিশ জেলার আধিকারিকরা জানতে পারে জনাব মূল পান্ডা, বাংলাদেশি জলদস্যু ও ভারতীয় জলদস্যুদের নিয়ে যৌথ ভাবে তৈরি করেছে জনাব বাহিনী গ্যাং। যেটা আন্তর্জাতিক জনাব গ্যাং বলে পরিচিত। রবিবার বসিরহাট থানার পুলিশ তথ্য সম্পূর্ণ গোপন রেখে ধলতিথা গ্রাম থেকে জনাব বাহিনীর মূল পান্ডা  জনাব বাইনকে গ্রেফতার করে। ধৃত জলদস্যুকে বসিরহাট মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে। এর পিছনে আন্তর্জাতিক অন্য কোন আতঙ্কবাদীর যোগ আছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। পাশাপাশি এই জনাব বাহিনীর জলদস্যুর সঙ্গে আরও কেউ জড়িত আছে কিনা সেটা নিয়ে খোঁজ চালাচ্ছে বসিরহাট জেলার সীমান্ত লাগোয়া থানার  গ্রামগুলোতে।

 

Related Articles

Back to top button
Close