fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

আন্তঃরাজ্য পর্যটন আশার আলো দেখাচ্ছে ভ্রমণ ব্যবসাকে

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: প্রকৃতির টানে ভ্রমণ পিপাসু বাঙালি প্রতিবছরই পুজোর মরসুমে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে বেড়ায়। কিন্তু এবছর ইচ্ছা থাকলেও উপায় নেই। বাধ সেদেছে করোনা মহামারী সংক্রমণ। তাই নিজের চেনা এলাকার চারিপাশে ঘুরে বেরিয়ে ভ্রমণের আনন্দ নিচ্ছেন আপামর বাঙালি। ভিন রাজ্যে যাওয়ার ইচ্ছে থাকলেও ট্রেন না চলায় তা সম্ভব হচ্ছে না। তবে নর্থ বেঙ্গল দার্জিলিং একেবারে হাউসফুল এতটুকু জায়গা নেই হোটেলে। এদিকে দীর্ঘদিন লকডাউন থাকায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে হোটেল ব্যবসা পর্যটন ব্যবসা সবই। তাই নতুন করে আবারও আশার আলো দেখছে পর্যটন ব্যবসায়ীরা।

বিগত সাত মাস ধরে করোনা আবহে একেবারে বিদ্ধস্ত পর্যটন। অন্য দিকে লকডাউন হওয়ায় পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত সকলের রুজি – রুটি কার্যত সংশয়ের মুখে পড়ে গেছে। কারণ গত মার্চ মাস থেকে ভারতবর্ষের বুকে নিজের দাপট অব্যাহত রেখেছে করোনা ভাইরাস। আর এই করোনা ভাইরাসের কারণে বিভিন্ন শিল্প থেকে শুরু করে কলকারখানা বিভিন্ন ক্ষেত্রেই তৈরি হয়েছে অচলাবস্থা। আনলক পর্বে ধীরে ধীরে খুলছে সব কিছু। তাই নতুন করে আশার আলো দেখছে পর্যটন ব্যবসায়ী থেকে আম জনতা।

করোনার জেরে পর্যটন ব্যবসার অর্থনৈতিক মেরুদন্ড একেবারে ভেঙে গিয়েছে। অভিযোগ পর্যটন ব্যবসায়ীদের। তাদের মতে অন্যান্যবার দুর্গাপুজোর সময় শ্বাস নেওয়ার সময় থাকে না। কিন্তু এ বছর করোনার জন্য বুকিং নেই। কার্যত মাছি তাড়ানোর হাল। পর্যটন শিল্প যার সঙ্গে প্রচুর মানুষের রুজি – রুটি জড়িত কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে সেই সমস্ত কিছু কার্যত ভেঙে পড়েছে। টুরিস্ট লজগুলোর অবস্থা অত্যন্ত সংকটজনক।

আরও পড়ুন: মাঝ আকাশে কপ্টার দুর্ঘটনা, অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ

অন্যদিকে ইন্ডিয়ান ট্যুরিজম কলকাতার পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সাগ্নিক চৌধুরী বলেন,  অন্তর রাজ্য পর্যটনের ওপর আরও জোর দেওয়া দরকার। আমাদের রাজ্যের মধ্যেই ২০০-২৫০ কিলোমিটারের মধ্যে এমন সব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের ভরপুর দর্শনীয় স্থান আছে যা মানুষকে আকর্ষিত করবে। পাশাপাশি যখন সাধারণ মানুষ ভিন রাজ্যে ভ্রমণের সুযোগ নিতে পারছে না। সে সময় উত্তরবঙ্গ মানুষের আকর্ষণের স্থান হয়ে উঠবে।

এদিকে দুর্গাপুজোকে কেন্দ্র করে প্রতিবছরই বহু বিদেশি পর্যটক কলকাতায় আসেন। এবার করোনা আবহে তাদের দেখা নেই। তাদের জন্য ভার্চুয়ালি ঠাকুর দেখার ব্যবস্থা থাকছে বলে জানান ইন্ডিয়ান ট্যুরিজিম কলকাতার পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা।

Related Articles

Back to top button
Close