fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

ইরানের সামরিক উপগ্রহ ‘নুর’ কে ঘিরে তরজায় আন্তর্জাতিক মহল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: একদিকে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা, অন্যদিকে করোনা বিধ্বস্ত ইরানের সামরিক উপগ্রহ ‘নুর’ মহাকাশে উৎক্ষেপণ- আন্তর্জাতিক মহলে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। ইরানের পাশে দাঁড়িয়েছে রাশিয়া। আমেরিকার সুরে সুর মিলিয়েছে ফ্রান্স ব্রিটেন। অন্যদিকে, মার্কিন ডেমোক্রেটিক দলের এক সিনেটর ইরানের শক্তি বৃদ্ধির জন্য ট্রাম্পের ‘ভুল নীতি’কে দায়ী করেছেন।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এক টুইটে জানিয়েছেন, ‘ইরান তার মহাকাশ গবেষণা কর্মসূচিকে স্বচ্ছ ও শান্তিপূর্ণ বলে যে দাবি করেছে তা সত্য নয়।’ এদিন, ইরানের নিজস্ব প্রযুক্তিতে কৃত্রিম উপগ্রহ স্থাপনের সাফল্যে উদ্বেগ প্রকাশ করে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ইরানের এই পদক্ষেপে প্রমাণিত হয় দেশটি পারমাণবিক অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি এগিয়ে নিতে চায়।’ এরপরেই আমেরিকার সুরে সুর মিলিয়ে ব্রিটেন ও ফ্রান্স জানিয়েছে, মহাকাশে ইরানের কৃত্রিম উপগ্রহ প্রেরণ, রাষ্ট্রপুঞ্জের নিরাপত্তা পরিষদের ২২৩১ নম্বর প্রস্তাবের লঙ্ঘন।

এপ্রসঙ্গে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি বলেন, ‘মহাকাশ গবেষণা ইরানের ন্যায়সঙ্গত অধিকার এবং শান্তিপূর্ণ এ অধিকার সংরক্ষণের ক্ষেত্রে ইরানকে কেউ বাধা দিতে পারবে না।’ সেইসঙ্গে, ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাইয়্যেদ আব্বাস মুসাভি এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী শান্তিপূর্ণ কাজে মহাকাশ গবেষণা ও কৃত্রিম উপগ্রহ ব্যবহার করার অধিকার বিশ্বের প্রতিটি দেশের রয়েছে। কাজেই ইরানের এ পদক্ষেপের ব্যাপারে লন্ডন ও প্যারিসের প্রতিবাদ তাদের দ্বৈত নীতির প্রমাণ বহন করে।’ মুসাভি আরো বলেন, ‘ব্রিটেন ও ফ্রান্স এমন সময় মধ্যপ্রাচ্যের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যখন এসব দেশ মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক উপস্থিতির মাধ্যমে এ অঞ্চলে শান্তি ও নিরাপত্তা বিপন্ন করে রেখেছে।’

আরও পড়ুন: বাংলার সাধারণ মানুষের দুর্দশার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি সুজন-মান্নানের

অন্যদিকে, ইরান মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের ২২৩১ নম্বর প্রস্তাব লঙ্ঘন করেছে বলে আমেরিকা যে অভিযোগ করেছিল তা নাকচ করে দিয়েছিল রাশিয়া। রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা জানিয়েছেন, ইরানের পরমাণু সমঝোতা বা নিরাপত্তা পরিষদের ২২৩১ প্রস্তাবের কোনোটিতে ইরানকে মহাকাশ গবেষণা চালাতে নিষেধ করা হয়নি।

এরই মাঝে মার্কিন ডেমোক্রেট দলের সিনেটর ক্রিস মারফি দাবি করেছেন, পশ্চিম এশিয়ায় প্রায় সব ক্ষেত্রেই ইরান আজ অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে, গত চার বছরের তুলনায় আমেরিকা আরো দুর্বল হয়ে পড়েছে। তিনি ইরানের সামরিক উপগ্রহ ‘নূর’ উৎক্ষেপণের ঘটনাকে দেশটির জন্য অনেক বড় সাফল্য হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভুল নীতির কারণে ইরান দিনকে দিন শক্তিশালী হয়ে উঠছে।

প্রসঙ্গত, ২২ এপ্রিল ইরান নিজস্ব রকেটের সাহায্যে সামরিক উপগ্রহ ‘নুর’ মহাকাশে পাঠায় এবং উপগ্রহটি পৃথিবীর ৪২৫ কিলোমিটার দূরের কক্ষপথে সাফল্যের সঙ্গে স্থাপিত হয়। এরপরেই আন্তর্জাতিক মহলে শুরু হয় জোর তরজা।

Related Articles

Back to top button
Close