fbpx
আন্তর্জাতিকহেডলাইন

করোনায় মৃত্যুর জন্য আমেরিকাকে দুষলেন ইরানের তেলমন্ত্রী

তেহেরান:  ইরানে প্রতিদিন গড়ে চারশর বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাচ্ছেন। আরও এর জন্য আমেরিকাকে দায়ী করেছেন ইরানের তেলমন্ত্রী বিজান নামদার জাঙ্গানেহ। বৃহস্পতিবার, জিইসিএফ’র ২২তম মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে বিজান জাঙ্গানেহ বলেন, ‘ইরানে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিন গড়ে যে চারশর বেশি মানুষ মারা যাচ্ছে, তার দায় সম্পূর্ণভাবে আমেরিকার। কারণ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য যেসব ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রয়োজন, সেগুলো আমদানিতে বাধা দিচ্ছে ট্রাম্প সরকার।’

গ্যাস রফতানিকারক দেশগুলোর সংগঠন জিইসিএফ’এর সম্মেলনে এদিন ইরানের তেলমন্ত্রী বলেন, ‘মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এবং তেল রফতানির অর্থ দেশে আনতে না পারায় ইরান নানাবিধ সমস্যার মুখে পড়ছে। চূড়ান্তভাবে করোনা মহামারি মোকাবিলা করা কঠিন হয়ে পড়েছে।’ তিনি  আরও বলেন, ‘২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু চুক্তি থেকে আমেরিকা বেরিয়ে গিয়ে ইরানের ওপর দফায় দফায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এছাড়া আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চিকিৎসা সামগ্রী কিনতে বাধা দিচ্ছে। এমনকি জরুরি খাদ্যসামগ্রী পর্যন্ত কেনার ব্যাপারে বাধা সৃষ্টি করছে আমেরিকা। এসব কারণে ইরানে করোনাভাইরাস রোধে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জটিল হয়ে পড়েছে। আর এর দায়-দায়িত্ব আমেরিকাকে নিতে হবে বলে।’

উল্লেখ্য, এর আগেও গত ৪ নভেম্বর, একই ইস্যুতে আমেরিকার বিরুদ্ধে তোপ দাগেন ইরানের সামরিক বাহিনীর প্রধান মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ হোসেইন বাকেরি। তিনি প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে ইরানের বিরুদ্ধে আমেরিকার কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপকে ‘বর্বরতার চরম নজির’ বলে উল্লেখ করেন। তিনি জানান, ‘মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে অতি জরুরি ওষুধপত্র ও অন্যান্য চিকিৎসা সামগ্রী আমদানি করতে পারছে না ইরান। যার জেরে অসিহায়, নিরাপরাধ মানুষজন প্রাণ হারাচ্ছেন।’

এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রপুঞ্জে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত মাজিদ তাখতে রাভানচি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ এবং চিকিৎসা সামগ্রী পাওয়ার অধিকার সব দেশের রয়েছে। কিন্তু, নিষেধাজ্ঞা আরোপের মাধ্যমে আমেরিকা সে অধিকার লঙ্ঘন করে চলেছে।’ তবে, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, তারা খাদ্য, ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি। কিন্তু রাভানচি ওয়াশিংটনের এই দাবিকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন। রাভানচির যুক্তি, ‘আন্তর্জাতিক ব্যবসা-বাণিজ্য এবং ব্যাংকিং খাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে আমেরিকা। এর ফলে কোনও লেনদেন করা যায় না। একই কারণে আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে ইরান কোনও ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী আমদানি করতে পারছে না।’

Related Articles

Back to top button
Close