fbpx
লাইফস্টাইলহেডলাইন

শীতে কাঁচা হলুদ খাওয়া কি ভালো?

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ গুণে ভরপুর কাঁচা হলুদ। এক কথায় বলে শেষ করা যাবে না, কাঁচা হলুদের গুণাগুণ। রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে এই উপকরণটি জায়গা করে নিয়েছে মানুষের দৈনন্দিন জীবনে। এটি বিশ্বাস করা হয় যে, কাঁচা হলুদ শুকনো হলুদের চেয়ে বেশি উপকারি।

শীতকালে কাঁচা হলুদ শরীরকে সুস্থ রাখতে দারুণভাবে কাজ করে। এই মৌসুমে সর্দি-কাশি, সর্দি-কাশির মতো সমস্যার জন্য এটি একাই যথেষ্ট।

 

কাঁচা হলুদের উপকারিতা

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে কাঁচা হলুদের জুড়ি মেলা ভার। বর্তমান সময়ে করোনা আতঙ্কে গোটা বিশ্বই জর্জরিত। কাঁচা হলুদের সেবন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

কাঁচা হলুদের ক্যান্সার লড়াইয়ের বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি প্রোস্টেট ক্যান্সারের ক্যান্সার কোষগুলির বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে, বিশেষত পুরুষদের মধ্যে, পাশাপাশি এগুলি দূর করে। এটি টিউমারগুলি ক্ষতিকারক বিকিরণের সংস্পর্শ থেকে রক্ষা করে।

হলুদে প্রদাহ রোধ করার ক্ষমতা রয়েছে। এর ব্যবহার বাত রোগীদের জন্য প্রচুর উপকার সরবরাহ করে।  বাতের ব্যথায় স্বস্তি দেয়।

গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে হলুদে লিপোপলিস্যাকারাইড নামে একটি উপাদান রয়েছে যা দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে। হলুদ এভাবে দেহের ব্যাকটেরিয়ার সমস্যা রোধ করে। এটি জ্বর রোধ করে। এটিতে ছত্রাকের সংক্রমণ থেকে শরীরকে রক্ষা করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

কীভাবে কাঁচা হলুদ ব্যবহার করবেন

দুধে হালকা গরম করে তাতে হলুদ মিশিয়ে নিন। শুধু ভালো ঘুম পাবে না, পাশাপাশি সর্দি-কাশিতেও স্বস্তি পাবেন।

রসুন এবং ঘি দিয়ে কাঁচা হলুদ খেলে বদহজম থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কাঁচা হলুদ সিদ্ধ করে তাতে সম পরিমাণ পরিমাণ রসুন এবং এক চামচ ঘি মিশিয়ে খেয়ে নিন।

কাঁচা হলুদে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি যৌগ থাকে, যার কারণে গলা ব্যথা দূর করতে হলুদ ব্যবহার করা যেতে পারে। কাঁচা হলুদের পেস্ট তৈরি করে এতে আধা চা চামচ রসুনের পেস্ট এবং এক চা চামচ গুড় মিশিয়ে নিন। খাওয়ার আগে এই মিশ্রণটি খানিকটা গরম করুন। দিনে একবার খান।

 

Related Articles

Back to top button
Close