fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

শুধুই কি যৌন নির্যাতন ও শ্বাসরোধ করে খুন, নাকি ধর্ষণও? নিউ আলিপুরের কিশোরী মৃত্যুর ঘটনায় দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের আবেদন পুলিশের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৭ জুলাই: শুধুই কি যৌন নির্যাতন ও শ্বাসরোধ করে খুন, নাকি হয়েছিল ধর্ষণও? এই প্রশ্নের উত্তর পেতেই নিউ আলিপুরের কিশোরী মৃত্যুর তদন্তে এবার কার্যত নজিরবিহীন ভাবে দ্বিতীয়বার ময়না তদন্তের সিদ্ধান্ত নিল পুলিশ। বেশ কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর না পেলে ওই কিশোরীর মৃত্যু রহস্যের জট খোলা অসম্ভব বলে মত তদন্তকারীদের।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নিউ আলিপুরের ই ব্লকের শিশুকন্যার মৃত্যুর পর যে ময়নাতদন্ত হয়েছিল, তাতে কয়েকটি বিষয় এখনও ধোঁয়াশা রয়ে  গিয়েছে। সেই ধোঁয়াশা দূর করতে ইতিমধ্যেই পুলিশ ওই শিশুকন্যার মৃতদেহের দ্বিতীয় বার ময়নাতদন্ত করবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পুলিশ নিশ্চিত হতে চাইছে ওই শিশুকন্যার মৃত্যু ঠিক কী কারণে হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে ছিল, গলায় ফাঁস লেগে খুন করা হয়েছিল মেয়েটিকে। সন্দেহের তির ছিল পরিবারের সদস্যদের দিকেই। কিন্তু ওই ফাঁস পরিবারের কেউ লাগিয়েছেন না কি সে নিজেই করেছিল, তা নিয়ে ধন্দ তৈরি হয়েছে। ধর্ষণ না যৌন নির্যাতন, তা নিয়েও বেশ কিছু প্রশ্ন রয়েছে।

শিশুটির দেহ যখন পুলিশের হাতে আসে, তখনই পুলিশ দেখেছিল মেয়েটির চোখ কার্যত ঠিকরে বাইরে বেরিয়ে আসার উপক্রম করেছিল। খুব ভয় পেলে বা তীব্র যন্ত্রণার মধ্যেই এই ধরনের ঘটনা ঘটে। পুলিশের একাংশের ধারনা, যোনিতে তীব্র যন্ত্রণার জেরেও মেয়েটি হার্টফেল করে থাকতে পারে। আর সেই কারণেই দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের সিদ্ধান্ত।

এছাড়াও ফরেন্সিক মেডিসিন স্পেশালিস্টের সাহায্য নেবেন তদন্তকারীরা। তাদের মতামত নিয়েই ওই শিশুকন্যার মৃত্যুর বিষয়ে  সিদ্ধান্তে পৌঁছতে চাইছেন তদন্তকারীরা। এই ঘটনায় পুলিশ কিশোরীর মায়ের বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক খুঁজে পেলেও সঠিক প্রমাণের অভাবে এখনও কাউকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি।

লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে, বছর দশেক ধরে ওই শিশুকন্যার মা একটি বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে আবদ্ধ। ওই যুবকের বাড়ি বেহালার সাহাপুরে। নিত্যদিন নিউ আলিপুরের ওই বাড়িতে আসা যাওয়া রয়েছে ওই যুবকের। ঘটনার দিনও ওই যুবক ওই বাড়িতে ছিল। ময়নাতদন্তের প্রথম রিপোর্টেই পুলিশ জানতে পারে শুধু শ্বাসরোধ করেই ওই শিশুকন্যাকে খুন করা হয়নি। মৃত্যুর আগে তাঁকে যৌন নির্যাতনও করা হয়। আর এখন পুলিশ এটাই নিশ্চিত হতে চাইছে যে যৌন নির্যাতন নাকি ধর্ষণ ঠিক কোনটা ঘটেছিল ওই কিশোরীর সঙ্গে। শ্বাসরোধে মৃত্যু না কি ধর্ষণের যন্ত্রণায় মৃত্যু হয়েছে ওই কিশোরীর। তার পরেই এই মামলার রহস্যজট খোলা সম্ভব হবে বলে মত তদন্তকারীদের।

Related Articles

Back to top button
Close