fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ সোশ্যাল মিডিয়ায়, তবে কি কংগ্রেস ত্যাগ করছেন সোমেনপুত্র!

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায় কলকাতা: সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক তাত্পর্য পূর্ণ ট্যুইট সোমেন পুত্র তথা প্রদেশ কংগ্রেস সাধারণ সম্পাদক রোহন মিত্রের। তাক লাগিয়েছে দলের অন্দরে বাইরে সবাইকে। যা শুধু মাত্র ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ। আর তাতেই এবার রোহন মিত্রের দল বদলের জল্পনা আরও উসকে দিয়েছে। রাজনৈতিক মহলের একাংশের মনে ইতি মধ্যেই প্রশ্ন দানা বেধেছে, তবে কি রোহন এবার দল ছাড়ছেন? সেজন্য ই কি দলের অন্দরে থেকে দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষনা করেছেন সোশাল মিডিয়ায়।
একদিকে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি আধির চৌধুরি তৃণমূলের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষনা করছেন। আবার বিক্ষুদ্ধ তৃণমুলিদের দলে আহবন করছেন। সেখানে দাঁড়িয়ে রোহনের পাল্টা বিদ্রোহ কংগ্রেসকে যথেস্ট অস্ব্স্তি তে ফেলবে। এমনতাই মত রাজনৈতিক পর‌্যবেক্ষক্দের একাংশের।
উল্লেখ্য সোমেনবাবুর জমানায় রোহন বেশ কদর পেতেন প্রদেশ কংগ্রেসে। কিন্তু অধীর জমানায় তা আর হচ্ছিল না। বিভিন্ন দলীয় অনুস্ঠানেও তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয় নি। শুধু তাই নয় সোমেন শিবিরের কেউই সে অর্থে আর গুরুত্ব পাচ্ছেন না প্রদেশ কংগ্রেসে। সোমেনপন্থীদের যুক্তি ছিল আগামী রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে প্রধান শত্রু হিসাবে চিহ্নিত করা হোক তৃণমূলকে নয়, বিজেপিকে। বামেদের সঙ্গেও সেই ভাবেই সমঝোতা হোক যাতে তৃণমূলের সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে বিজেপির সুবিধা করে না দেওয়া হয়। কিন্তু অধীর নিজে ও তাঁর অনুগতরা সেই দাবি মানেননি। তার জেরেই প্রদেশ কংগ্রেসে ক্রমশ কোনঠাসা হচ্ছেন ও গুরুত্ব হারাচ্ছেন সোমেনপন্থীরা। ঠিক এই রকম অবস্থায় রোহনের জার্সি বদল সোমেন শিবিরে নতুন আশার আলো দেখিয়েছে। কারন সোমেন অনুরাগীদের মধ্যে অনেকেই এখন জানাচ্ছেন, সাম্প্রদায়িক দলকে রুখতে রোহন সঠিক পথই বেছে নিয়েছে। তবে রোহন নিজে এখনও এই বিষয়ে সরকারি ভাবে কিছু জানায়নি।
সোমেন মিত্র ও শিখা মিত্র উভয়ই একসময় কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে এসেছিলেন। সোমেন হয়েছিলেন সাংসদ ও শিখা বিধায়ক। সে হিসাবে রোহনের কার্যত ঘর ওয়াপ্সি হতে চলেছে। শোনা যাচ্ছে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে তাঁকে টিকিটও দিতে পারে তৃণমূল। রোহনের হাত ধরে কার্যত সোমেন শিবিরের একটা বড় অংশই এবার তৃণমূলমুখী হতে চলেছে। ফলে রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় কংগ্রেসের যে ছোট ছোট পকেট ছিল সেগুলিতে এবার ক্লিন স্যুইপ দিতে চলেছে তৃণমূল। সপ্তাহ দেড়েক আগেই কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বাদুড়িয়ার বিধাযক। এবার আসছেন রোহন। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্নের মুখে পড়েছে গিয়েছে প্রদেশ কংগ্রেসে অধীরের নেতৃত্ব।

Related Articles

Back to top button
Close