fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

ইজরায়েলি সেনাদের হাতে আটক ৬৯ ফিলিস্তিনি নারী-শিশু!

রামাল্লাহ, (সংবাদ সংস্থা): চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে ৬৯ জন ফিলিস্তিনি নারী ও শিশুকে আটক করেছে ইজরায়েলি সেনা। এক বিবৃতিতে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানিয়েছেন ফিলিস্তিনের বন্দি বিষয়ক রিসার্চ সেন্টারের মুখপাত্র রিয়াদ আল-আশকার। তিনি আরও বলেছেন, “ইজরায়েলি সেনারা ফিলিস্তিনি নারীদের আটক করার সময় কোনো রকমের বাছবিচার করে না। এমনকি তারা বৃদ্ধা এবং অসুস্থ নারীদেরও ধরে নিয়ে যেতে দ্বিধা করে না।”
আল-আশকার বলেন, ফিলিস্তিনি নারীরা যাতে কোনো ধরনের ইজরায়েলবিরোধী প্রতিরোধ সংগ্রামে অংশ না নেন সেজন্য তাদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করার লক্ষ্যেই নারীদের এভাবে ধরে নিয়ে যাচ্ছে তেল আবিব। এমনকি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইজরায়েল-বিরোধী পোস্ট দেয়ার দায়েও ফিলিস্তিনি নারীদের ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।  তথ্য ও পরিসংখ্যান পেশ করে তিনি জানিয়েছেন, “বর্তমানে ইজরায়েলের কারাগারে ৪১ ফিলিস্তিনি নারী বন্দি রয়েছেন। এদের মধ্যে ২৫ জনের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আনা হয়েছে এবং বাকি ১৬ জন বিনা বিচারে আটক আছেন। শুধু তাই নয়,  ইজরায়েলি কারাগারগুলিতে বর্তমানে যে চার হাজার ৮ শতাধিক ফিলিস্তিনি বন্দি রয়েছেন তাদের মধ্যে ১৭০ জন শিশু ও বৃদ্ধ রয়েছেন।”
প্রসঙ্গত, গত ২৪ জুন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘আল-মিজান সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস’ জানিয়েছে, গাজায় ১৩ বছরের ইজরায়েলি অবরোধের কারণে কমপক্ষে ৭৩ শতাংশ পরিবার খাদ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। খুব শিগগিরই খাবার সংকট প্রকট হতে যাচ্ছে অঞ্চলটিতে।’ এক বিবৃতিতে এনজিওটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ‘বেসামরিক কর্মচারীদের বেতন পরিশোধে বিলম্ব এবং নগদ ও মানবিক সহায়তার সমস্যা হওয়ায় ৭৩ শতাংশ পরিবার খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা ভুগছে। এই সংকট তৈরি হওয়ার পেছনে করোনা মহমারীরও প্রভাব রয়েছে।’
উল্লেখ্য, প্রায় এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ইজরায়েলের অবরোধের মুখে পড়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত কারাগারে পরিণত হয়েছে ফিলিস্তিনের গাজা। দখলদারিত্বের অবসান ও নিজ ভূমিতে ফেরার দাবিতে প্রতিদিনই প্রায় বিক্ষোভ করছে সাধারণ ফিলিস্তিনিরা। অন্যদিকে, নিরস্ত্র ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ দমাতে গুলি ছুড়ছে ইজরায়েলি বাহিনী। এতে প্রতিনিয়তই প্রাণ হারাচ্ছেন ফিলিস্তিনের বাসিন্দারা। এরই মাঝে ইজরায়েলি সেনাদের হাতে ফিলিস্তিনি নারী ও শিশু আটকের চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এনেছেন ফিলিস্তিনের বন্দি বিষয়ক রিসার্চ সেন্টারের মুখপাত্র রিয়াদ আল-আশকার।

Related Articles

Back to top button
Close