fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হাতির দাঁত উদ্ধার, এক মহিলা পাচারকারি সহ গ্রেফতার দুই

কৃষ্ণা দাস, শিলিগুড়ি: বন বিভাগের তৎপরতায় ফের বন্য প্রানীর দেহাবশেষ উদ্ধার উত্তরবঙ্গে। এক মহিলা সহ আটক দুই। কালিম্পঙের মংপু থেকে হাতির দাঁত সহ দুই আন্তর্জাতিক চোরাচালানকারীকে গ্রেফতার করল বনবিভাগের উত্তরবঙ্গের স্পেশাল টাস্কফোর্স। ধৃতদের মধ্যে একজন মহিলাও রয়েছে। ধৃতরা হল শোভা তামাং এবং সোম শেরিং তামাং। দুই জনেরই বাড়ি দার্জিলিঙে। শুক্রবার ধৃতদের জলপাইগুড়ি আদালতে পাঠিয়ে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানায় বনবিভাগ।
উত্তরবঙ্গ টাস্কফোর্সের প্রধান সঞ্জয় দত্ত জানান, গোপন সূত্রে বনদফতরের আধিকারিকরা খবর পায় একটি চক্র হাতির দাঁত বাইরে পাচারের উদ্দেশ্যে কালিম্পংয়ের মংপোতে ডেরা গেড়েছে। সেই সুত্র ধরে স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের একটি দল সেখানে হানা দেয়।  সেখান থেকেই বন্যপ্রাণীর দেহাবশেষ সহ একজন মহিলাকে ধরা হয়।
উল্লেখ্য, বন বিভাগ জানিয়েছে, এই মহিলা চোরাচালানকারিকে দীর্ঘদিন খুঁজছিল বনদফতর। সেই সঙ্গে একজন পুরুষ পাচারকারীকে গ্রেফতার করে বনবিভাগ। সঞ্জয় দত্ত আরও জানান, আরও বেশ কিছু পাচারকারী এই ডেরায় ছিল এবং তাদের কাছে জীবন্ত প্যাঙ্গোলিনও ছিল। বনবিভাগের হানার খবর পেয়েই পাচারকারিরা সেই প্যাঙ্গোলিন নিয়ে পালিয়ে যায়। ধৃত মহিলার বাড়ি দার্জিলিংয়ে হলেও তার সিকিম, নেপাল, ভুটানেও আন্তর্জাতিক যোগাযোগ রয়েছে। সেই সব জায়গার সমস্ত রকম যোগাযোগ নম্বর রয়েছে তার কাছে।  বিভিন্ন জায়গা থেকে মাল নিয়ে চীন পর্যন্ত এদের চোরাচালানের একটি চক্র সক্রিয় রয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে ধৃতরা স্বীকার করেছে গরম জলে প্যাঙ্গোলিন ফেলে মেরে ফেলা হয়। তারপর আঁশ ছাড়িয়ে মাংস বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে তারা।
পাশাপাশি আঁশটাও কোড নামে বাইরে বিক্রি করে। তার বক্তব্য এই সমস্ত বন্যপ্রাণী সহ বন্যপ্রানীর দেহাংশ পাচারের কাজে মহিলাদের যুক্ত করা হয়। মহিলাদের যুক্ত করার ফলে বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। এর আগেও ব্যাঙ্ককের একজন মহিলাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল বলে তিনি জানান। এদিন যে হাতির দাঁতটি উদ্ধার হয়েছে সেটি ৫০০ গ্রাম ওজনের । এছাড়া একটি চার চাকার ছোট গাড়ি এবং কিছু বিদেশি মুদ্রা ও কয়েকটি ব্যাংকের এটিএম কার্ড বাজেয়াপ্ত করেছে টাস্ক ফোর্স। সঞ্জয়বাবু আরো জানান, অভিযুক্তরা আন্তর্জাতিক পাচার চক্রের সঙ্গে জড়িত। চক্রটি বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী ও বন্যপ্রাণীর দেহাংশ পাচার করে। হাতির দাঁতটি নেপালে পাচারের মতলব ছিল সেখান থেকে হাতবদল হয়ে চীনে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়েছিল পাচারকারীরা।  ধৃতদের আজ জলপাইগুড়ি আদালতে তুলে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close