fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

 করোনা আবহে জগন্নাথ, বলরাম, শুভদ্রা মাসির বাড়ি গেল এসি বুলেরো করে

মিল্টন পাল, মালদা: করোনা সংক্রমনের জেরে পথে নেমে দড়ি টানা হচ্ছে না রথযাত্রা। ফলে নিরাস ভক্তরা। মালদা জেলার ইস্কন,মকদমপুর কোন রথের দড়ি টানা হচ্ছে না। তবে এবার সরকারী নির্দেশ মেনে বুলেরো গাড়ির এসি কামড়ায় মাসির বাড়ি পাড়ি দিল শুভদ্রা,বলরাম,জগন্নাথ। সেখানে জমায়েতে ৫০জন ধার্য করা হয়েছে। তবে প্রার্থনা একটাই করোনা মুক্ত করো ভারতবর্ষ।

 

করোনা আবহে একে একে অনেক উৎসব ম্লান হয়েছে। তবে ভক্তরাও অনেকে সাধুবাদ জানিয়ে বাড়িতে থেকে উৎসব পালনে ব্রতী হয়েছে। পথে রথের দড়িতে টান পরবে না ভক্তদের নিরাস আবহ থেকেই যায়। তবে ভক্তরা জানান,করোনা যে ভাবে সংক্রমিত হচ্ছে তাতে আগামী দিনে ভয়ঙ্কর আকার নেবে। তবে উৎসব হবে আগে বাঁচতে হবে। সেই কারণে সরকারি যা নির্দেশ রয়েছে তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করা আমাদের কর্তব্য। সেই কারনে আমরা পথে নামবো না। তাই এবার বুলেরো গাড়ির এসিতে চড়ে মাসির যাচ্ছেন জগন্নাথদেব। করোনা আবহে মালদা ইসকন মন্দিরের জগন্নাথদেবের যাত্রা বাহন পরিবর্তণ করা হল। এই বছর রথে চড়ে নয় মারুতি চড়েই মাসির বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিলেন জগন্নাথদেব।

 

 

জেলার ইসকন মন্দিরের পুরোহিত বিমলা হরেকৃষ্ণ দাস জানান প্রশাসনের নির্দেশ মেনে এই রথযাত্রা উৎসব করা হচ্ছে। পূজার রীতি আচার পালন করা হলেও থাকছে না আড়ম্বর। কেবলমাত্র ৫০জন ভক্তদের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।জগন্নাথ দেবের রথযাত্রার ব্যবস্থা করা হলে উৎসাহিত হয়ে কয়েক হাজার ভক্তদের সমাগম হত। তাতে সংক্রামণ ছড়ানোর সম্ভবনা হত। তাই রথে নয় জগন্নাথদেবকে মারুতিতে করে মাসির বাড়ী রামকৃষ্ণপল্লীতে নিয়ে যাওয়ার আয়োজন করা হয়।সেখানেই সাতদিন ধরে পূজো আর্চনা চলবে। তবে সরকারী নির্দেশ মেনে করা হবে। অন্যদিকে জেলার পুরাতন মালদা, চাঁচল, মকদমপুর, সামসি, রতুয়া, গাজোল, হরিশ্চন্দ্রপুর সহ একাধিক জায়গায় সরকারি নির্দেশ মেনে জগন্নাথ শুভদ্রা,বলরামকে মাসির বাড়ি নিয়ে যাওয়া হয়। তবে এদিন কোথাও রথযাত্রা উপলক্ষে কোন মেলাও বসে নি।

Related Articles

Back to top button
Close