fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসানসোল ছিনতাইয়ের অভিযোগে জামুড়িয়া থানার পুলিশ গ্রেফতার করলো বীরভূমের কুখ্যাত দুষ্কৃতীকে

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: চলতি সেপ্টেম্বর মাসের গত ২০ তারিখে এক ছাগল ব্যবসায়ীর টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনার তদন্তে নেমে বীরভুমের কুখ্যাত অপরাধী এনামুল খানকে জামুড়িয়া পুলিশ গ্রেফতার করল। এনামুল খানের বিরুদ্ধে বীরভূমের কাঁকড়তলা থানায় ৯টি ও খয়রাশোল থানায় ৩টি মামলা আছে। এছাড়াও খয়রাশোলের তৃণমূল ব্লক সভাপতি দীপক ঘোষ খুনের অন্যতম অভিযুক্ত এই এনামুল খান। তাকে বীরভূম জেলার পুলিশ দীর্ঘদিন ধরেই খুঁজছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ২০ সেপ্টেম্বর বীরভুমের লোকপুর থানার আলিয়ট ডাঙ্গাল পাড়ার বাসিন্দা ছাগল ব্যবসায়ী সেখ সাজিবুল তার দুই সঙ্গীকে নিয়ে একটি মারুতি ভ্যানে আসানসোলের হিরাপুর থানার বার্ণপুরের ধ্রুবডাঙ্গার মহাজনের কাছে টাকা দিতে যাচ্ছিল। সেদিন সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ আসানসোলের জামুড়িয়া থানার ডাহুকার কাছে একটি বাম্ফারে তাদের মারুতি গাড়ির গতি আস্তে হতেই দুটি মোটর বাইকে চার দুষ্কৃতি পথ আটকায়। আগ্নেয়াস্ত্র দেখিয়ে মারধর করে তাদের কাছে থাকা সাড়ে ৫ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়। তাদের চিৎকার শুনে স্থানীয় বাসিন্দারা আসার আগেই ওই চার দুষ্কৃতি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। পরের দিন ছাগল ব্যবসায়ী সেখ সাজিবুল জামুড়িয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের ভিত্তিতে জামুড়িয়া থানার পুলিশ ঘটনার তদন্তে নেমে এলাকায় নাকা চেকিং শুরু করে। রাত জামুড়িয়া থানার চিচুড়িয়া ভুড়ি রোডের লো-বাঁধ এলাকা থেকে বছর ৩০-এর এনামুল খানকে গ্রেফতার করে। তার কাছ থেকে একটি পালসার মোটরসাইকেল, একটি ভোজালি ও নগদ ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। ধৃতকে আসানসোল আদালতে তোলা হলে, বিচারক তার জামিন নাকচ করে জেল হাজতে পাঠান। আসানসোল জেলে সাক্ষীদের দিয়ে টিআই প্যারেডে তাকে সনাক্ত করানো হয়। এরপরে তাকে চার দিনের পুলিশ রিমান্ডের নির্দেশ দেন বিচারক।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই এনামুল খানের নামে কাঁকড়তলা থানা ও খয়রাশোল থানায় ১২ টি মামলা আছে। এছাড়াও খয়রাশোলের তৃণমূল ব্লক সভাপতি দীপক ঘোষ খুনের অন্যতম অভিযুক্ত এনামুল খান। তাকে বীরভূম জেলার পুলিশ দীর্ঘদিন ধরেই খুঁজছিল। পুলিশ তার বাকি সঙ্গীদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close