fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ইটভাটার মধ্যেই জেসিবি অপারেটরের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার, ব‍্যাপক চাঞ্চল্য পূর্বস্থলীতে

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালনা: ইটভাটার মধ্যেই জেসিবি অপারেটরের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলী এলাকায়।পুলিশ জানায় মৃতের নাম প্রতীক মণ্ডল (২৪)। মৃতের পরিবারের অভিযোগ টাকা পয়সা নিয়ে ইটভাটা মালিকের সাথে ঝামেলা হওয়াতেই প্রতীককে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। বুধবার কালনা মহকুমা মহকুমা হাসপাতাল পুলিশ মর্গে মৃত ব্যক্তির ময়নাতদন্ত হয়। পূর্বস্থলী থানার পুলিশ খুনের মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা যায় যে, প্রতীক মণ্ডলের বাড়ি পূর্বস্থলী ২ ব্লকের মধ্যসাজিয়ারা গ্রামে। গত দু’বছর ধরে সে পূর্বস্থলীর পারুলিয়ার বড়গাছি এলাকার লুনা ইটভাটায় গাড়ি চালকের কাজ করতো। মৃতের মা তপতি মণ্ডল জানান, কাজের পারিশ্রমিক বাবদ পাওনা দেড় লক্ষ টাকা তাঁর ছেলে ভাটার ম্যানেজারের কাছে জমা রেখেছিল।

এছাড়াও কিছুদিন আগে প্রতীক লটারিতে যে ৪৫ হাজার টাকা পায় সেটাও জমা রেখেছিল মালিকের কাছে। তপতিদেবী বলেন, ‘ জমানো সব টাকা নিয়ে বাড়ি তৈরির ইচ্ছা ছিল তাঁর ছেলের। সে কিছুদিন আগে ভাটা মালিকের কাছে ওই টাকা চায়। তখনই ভাটা মালিক তাঁর ছেলের সঙ্গে অশান্তি সৃষ্টি করে।’ মৃতর বাবা গোপাল মণ্ডল দাবি করেন, ‘তাঁর ছেলে আত্মহত্যা করতে পারেনা। টাকা চাওয়ার জন্য ইটভাটা মালিকের সাথে ছেলের ঝামেলা বেঁধে ছিল। তারই বদলা নিতে ইটভাটার মালিকপক্ষ গলায় ফাঁস দিয়ে প্রতীককে প্রাণে মেরে ভাটার একটি ঘরে ঝুলিয়ে দিয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে সে ঘরে পৌঁছে তাঁরা ছেলের মৃতদেহ দেখতে পান। ইটভাটার বেশ কিছু শ্রমিক এই কাজে যুক্ত থাকতে পারে বলে মৃতর বাবা দাবি করেছেন।’ মৃতর মা তপতিদেবী বলেন, তিনি সবিস্তার জানিয়ে
থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ইটভাটার কর্মী সনাতন হাঁসদা যদিও এদিন জানান, প্রতীকের সঙ্গে ভাটা মালিকের ঝামেলা গণ্ডগোল হতে তারা কোনও দিন দেখেননি। তবে ইদানিং ফোনে কারের সাথে উত্তেজিত হয়ে কথাবার্তা বলত সেটি ভাটার অনেকেই দেখেছে। প্রতীক উত্তেজিত হয়ে কার সঙ্গে ফোনে কথা বলতো সে বিষয়ে কাউকে কিছু জানায়নি। শুধু তাই নয়, কয়েকদিন যাবৎ সন্ধ্যায় বড়গাছি বাজারের দিকে গেলে সে সেখান থেকে অনেকটা দেরি করে ফিরছিল। কোন কারণে প্রতীক মনমরা হয়েও থাকছিল। কি করে এমন ঘটনা ঘটলো তার কিছুই ভাটার কেউ বুঝে উঠতে পারছেনা বলে সনাতন বাবু মন্তব্য করেছেন। একই কথা বলেছেন ভাটার মালিক কর্তৃপক্ষ।

পূর্বস্থলী থানার এক অফিসার বলেন, “মৃতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে খুনের মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।তবে পরিবার নির্দিষ্ট কারুর নামে অভিযোগ দায়ের করেননি। এদিন মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হয়েছে।ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। তার ভিত্তিতে আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়া হবে।”

Related Articles

Back to top button
Close