fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জেইই ও নীট পরীক্ষার জন্য রাজ্য সরকারকে পুনর্বিবেচনা করার জন্য আবেদন কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র

কৃষ্ণা দাস, শিলিগুড়ি: রাজ্যে কোনো শিল্প নেই। এক এক করে কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। কোনো বিনিয়োগ নেই। অথচ বিনিয়োগের নামে কখনও অমিতাভ বচ্চন,  কখনও শাহরুখ খানকে এনে মনোরঞ্জন করে অর্থের অপচয় করা হচ্ছে। দুদিনের উত্তরবঙ্গ সফরে এসে এই ভাষাতেই রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়।  রবিবার শিলিগুড়ি ভেনাস মোড়ে বিজেপির জেলা কার্যালয় জয়মনী ভবনে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ সহ  ছাত্র ছাত্রীদের ভবিষ্যত নিয়েও ছিনিমিনি খেলার অভিযোগ তুলে একরাশ ক্ষোভ উগরে দিয়ে রাজ্য সরকারকে অহংকার কাটিয়ে বেড়িয়ে আসার আবেদন জানান।
তিনি জানান, কেন্দ্র সরকার ইউজিসির সঙ্গে বসে জেইই ও নীট পরীক্ষার জন্য করোনা আবহে গাইডলাইল অনুযায়ী কিভাবে পরীক্ষা নেওয়া যায় সেই বিষয় গুলি বিচার বিবেচনা করে সুপ্রীম কোর্টের নির্দেশে ১৩ সেপ্টেম্বর পরীক্ষার দিন নির্ধারন করা হয়েছে। এই পরীক্ষার বিরুদ্ধে দাড়িয়েছে পশ্চিম বঙ্গ সরকার। ঠিক তার আগের দিন সাপ্তাহিক লকডাউনের  সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।” এদিকে   শনিবার পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, “করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তখন যে কোনো সময় পরীক্ষা নেওয়া যেতে পারে। সুপ্রীম কোর্ট  ১৩ তারিখ পরীক্ষার পক্ষে রায়কে পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন জানানো হয়েছে। সেই রায়ের অপেক্ষায় রয়েছে রাজ্য সরকার।” এদিকে পরীক্ষার  ঠিক  আগের দিন যদি রাজ্যে লকডাউন হয়। তাহলে উত্তরবঙ্গের পরীক্ষার্থীদের সমস্যায় পড়তে হবে সেই আশঙ্কায় পরীক্ষার্থীরা। শিলিগুড়ি হল মুল পরীক্ষা কেন্দ্র। আলিপুরদূয়ার সহ কুচবিহার ও উত্তরবঙ্গের অন্যান্য জেলাগুলির বহু পরীক্ষার্থী রয়েছে।
শিলিগুড়িতে পরীক্ষা দিতে আসতে লকডাউন থাকলে তাদের অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে।  চিন্তিত বহু পরীক্ষাথী। কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বলেন, “কিছু বিষয়ে রাজনীতি করা উচিত নয়। বিশেষ করে শিক্ষার ক্ষেত্রে তো নয়ই। আমরা চাই না শিক্ষার্থীদের করোনার জন্য এক বছর নষ্ট হোক। এই বিষয়ে রাজনীতি করে রাজ্য সরকার পরীক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে খেলা করছেন।  যেখানে গোটা দেশ এই পরীক্ষার পক্ষে। ৯০ শতাংশ শিক্ষার্থী আবেদন জমা করেছে। সেখানে একমাত্র এই রাজ্যের পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিতে না পারলে। বাকি সবাই সব কলেজে ভর্তি হয়ে গেলে  এখানকার শিক্ষার্থীরা ভর্তি হতে না পারার ফলে তাদের ভবিষ্যৎ নষ্ট হয়ে যাবে।”  তার মতে, ওড়িষ্যায় বিজেপি সরকার নেই অথচ এই পরীক্ষা ঘিরে ওড়িশা সরকার শিক্ষার্থীদের জন্য সুবন্দোবস্ত করেছে। অন্যান্য আরও রাজ্যও তাই করেছে। রাজ্য সরকারের পুনর্বিবেচনা করে দেখা উচিত।”
 তার আরও অভিযোগ রাজ্য সরকার শুধুমাত্র ৩০ শতাংশ মানুষের সরকার। বাকি ৭০ শতাংশ মানুষের জন্য নয়। যে কোনো সরকার ১০০ শতাংশ মানুষদের জন্য হওয়া উচিত। তিনি দাবী করেন আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি জয়ী হবে ও রাজ্যের ১০০ শতাংশ মানুষের সরকার হবে। পাশাপাশি তিনি হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক খুন হয়েছে বলে অভিযোগ করে এই ঘটনায় রাজ্য সরকার ও এসপি সুরজিৎের বিরুদ্ধেও তোপ দাগেন। তার অভিযোগ শুধু এই ঘটনা নয় পুরুলিয়াতেও বিজেপি কার্যকর্তাকে খুন করা হয়েছে তখন সেখানে এই পুলিশ অফিসার পোস্টিং ছিলেন। তাই এদিন তিনি একপ্রকার হুশিয়ারি দিয়ে বলেন এই পুলিশ অফিসার কোথায় কোথায় গিয়েছেন সেখানে কোন কোন বিজেপি কর্মকতা খুন হয়েছে সমস্ত লিস্ট তৈরী করে আাগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি জয়লাভ করার পর তার তদন্ত করে পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।
এদিন তিনি রাজ্য সরকারকে বিজনেস মীটের নামে কত টাকা খরচ হয়েছে ও কত শিল্পপতি কত টাকা বিনিয়োগ করেছে তার শ্বেতপত্র প্রকাশ করতে বলেন। তার অভিযোগ বিজনেস মীটের নামে কোটি কোটি টাকা খরচ করা হয়। বলিউড থেকে এই বিজনেস মীটের নামে অমিতাভ বচ্চন শাহরুখ খানদের এনে মনোরঞ্জন করে টাকার অপচয় করা হয়। তিনি বলেন, “আগামী বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি জয়লাভ করবে। তখন রাজ্য তথা শিলিগুড়িতে শিল্প হবে। এখানকার যুবকদের চাকরীর জন্য বাইরে যেতে হবে না।”

Related Articles

Back to top button
Close