fbpx
অন্যান্যপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

টানা ১২১ বছর ধরে মাটির চালা ঘরেই পুজো পেয়ে আসছে নারায়ণগড়ের দাস পরিবারের কালী

সুদর্শন বেরা, পশ্চিম মেদিনীপুর: পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার নারায়ণগড় থানার অন্তর্গত দুড়িয়া গ্রামের  জমিদার ছিলেন তরেন্দ্রনাথ দাস । ফসল ভালো হলে কালী পুজো  করবেন বলে মানত করেন। সেটা বাংলা ১৩০৬ সাল। কার্তিক মাসে কৃষকরা প্রচুর ফসল ঘরে তুললেন। কথা রাখলেন তিনি।

মাটির চালা ঘর বানিয়ে  কালী মায়ের আরাধনা শুরু করলেন । সেই ১৩০৬ সাল থেকেই দাস পরিবারে কালীর আরাধনা হয়ে আসছে। কথা দিয়েছিলেন গ্রামের কৃষক পরিবার যেমন বাড়িতে বসবাস করেন সেরকম ঘরেই মায়ের আরাধনা করবেন তিনি। ধুমধাম করে পুজো হত। তাঁর জমিদারীর অধীনে থাকা ১২ গ্রামের মানুষ আসতেন তাঁর পুজো দেখতে ও প্রসাদ খেতে। কলকাতা থেকে বাদ্যযন্ত্র , আতশবাজি , রং বাহারি আলো আনা হত পুজোয়। ৪ দিন ধরে পুজো হত। যাত্রা, পালা গান, বাউলের আসর বসত।

জমিদারের  মৃত্যুর পর তাঁর মেজ ছেলে চিত্তরঞ্জন দাস গ্রামবাসীদের সঙ্গে নিয়ে পুজো চালিয়ে এসেছেন।  তবে এখনো অটুট রয়েছে মাটির সেই চালা ঘর। খড়ের চালা বদলে হয়েছে টালি। বর্তমান উত্তরসূরি ডা. বিজিত দাস জানান, তাঁদের পুজো এবছর ১২১ বছরে পড়লো।  প্রত্যেক বছরেই  এই পুজোকে ঘিরে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করতেন তাঁরা।  বর্তমানে করোনার কথা মাথায় রেখে ও হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে কোন রকম অনুষ্ঠান ছাড়াই তাঁরা এবছর কালী মায়ের আরাধনা করছেন।

Related Articles

Back to top button
Close