fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

উপনির্বাচনে মধ্যপ্রদেশে কুর্শি পুনর্দখলে মরিয়া কমলনাথ! দায়িত্বে প্রশান্ত কিশোর

নিজস্ব প্রতিনিধি, ভোপাল : করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই মধ্যপ্রদেশের কুর্শি পুনর্দখলের ছক কষতে শুরু করেছে কংগ্রেস! শুরু হয়েছে ত্রিস্তরীয় ফর্মুলায় ঘুঁটি সাজানোর কাজ! ফের নিয়োগ করা হয়েছে ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরকে।

ভারতে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই বদলে গিয়েছিল মধ্যপ্রদেশের রাজনৈতিক সমীকরণ! কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদ্যিত সিন্ধিয়াকে দলে টেনে বিজেপি উল্টে দিয়েছিল কংগ্রেসের ১৫ মাসের কমল নাথ সরকারকে। কিন্তু করোনা সঙ্কট কাটিয়ে ওঠার পরেই বাজবে মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার ২৪ টি আসনের উপনির্বাচনের দামামা। ২০২০ অক্টোবর মাসেই হতে পারে নির্বাচন। যে ২৪টি আসনে উপনির্বাচন হবে এর মধ্যে ২২টি কেন্দ্রে সিন্ধিয়া ঘনিষ্ঠরা পদত্যাগ করে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। এদের মধ্যে কয়েকজন মন্ত্রীও হয়েছেন। কিন্তু উপনির্বাচন পরবর্তীতে ক্ষমতা ধরে রাখতে হলে বিজেপিকে অন্তত অর্ধেক আসনে জিততেই হবে। কারণ, এই মুহূর্তে নির্দল, সপা ও বসপা বিধায়কদের ভরসায় চললেও তা যে খুব একটা ভরসা যোগ্য নয়, তা ভালোভাবেই বোঝেন বিজেপি নেতৃত্ব। অর্থাৎ এই নির্বাচনে আসন সংখ্যা জয়ের উপরেই নির্ভর করবে বিজেপির সরকারের অস্তিত্ব।

অন্যদিকে এই নির্বাচনে জয় পেলে পুনরায় মধ্যপ্রদেশের কুর্শি দখল করতে পারবে কমল নাথ। আর এই টান টান রাজনৈতিক সমীকরণের মধ্যে দাড়িয়ে নিজেদের ঘর গোছানোর কাজ শুরু করে দিযেছেন কমল নাথ। সূত্রের খবর তিনি চ্ইছেন ২৪ টির মধ্যে অন্ততঃ ২০ টি আসন কংগ্রেসের দখলে আনতে।

কিন্তু সে কাজ কি খুব সহজ হবে? কারণ মধ্যপ্রদেশে ১৫ বছরের বিজেপি সরকারের একটা ভিত আগেই ছিল। ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরকে নিয়োগ করে সে ভিতে কিছুটা আঘাত করলেও ১৫ মাসের বেশি ধরে রাখতে পারলো না। আর চার মাসের মধ্যে নতুন করে সে কাজ যে পুনরায় করা সম্ভব হবে তাও বলা কঠিন। তাই তিন স্তরে ভাগ করে বিজেপিকে ধরাসায়ী করার পরিকল্পনা কষছেন কমলনাথ।

তার মধ্যে বিজেপির অস্ত্রেই বিজেপিকে বধ করার পরিকল্পনা অন্যতম। সূত্রের খবর, বিজেপি সিন্ধিয়াকে দলে নেওয়ায় মধ্যপ্রদেশের  বিজেপি নেতৃত্বের একাংশের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। সেই সমস্ত ক্ষুব্ধ নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছেন কংগ্রেস নেতৃত্ব। তাঁদেরকে কংগ্রেসের দিকে টানার প্রক্রিয়াও শুরু করেছেন। এর পাশাপাশি কংগ্রেসের প্রবীণ ও বিক্ষুব্ধ নেতাদের ফের দলে ফেরানো ও সক্রিয় করার কাজ শুরু করেছেন কমলনাথ।

অন্য একটি ফর্মুলা হিসাবে কংগ্রেস সরকারের ১৫ মাসের কাজ বনাম বিজেপি সরকারের ১৫ বছরের কাজকে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে জনগণের সামনে তুলে ধরার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কংগ্রেস। সেখানে করোনা মোকাবিলায় বর্তমান বিজেপি সরকারের ভূমিকাকেও কংগ্রেস শাসিত অন্যান্য রাজ্যের সঙ্গে তুলনা করে তুলে ধরা হতৃ পারে বলে জানা গিয়েছে। আর এই বিজ্ঞাপনের কাজ করার জন্য ইতিমধ্যেই একটি কর্পোরেট সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়ার প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়েছে বলে সূত্রের দাবি।

আর তৃতীয় ফর্মুলা প্রশান্ত কিশোরকে নিয়োগ। যে প্রশান্ত কিশোরের কৌশলে ২০১৮ সালে ক্ষমতা দখলে সক্ষম হয়েছিল কংগ্রেস। সূত্রের খবর ইতিমধ্যেই কমল নাথ আগামী উপনির্বাচনের রণকৌশল তৈরির দায়িত্ব দিয়ে দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোরকে। তিনি নাকি দায়িত্ব নিয়েই কংগ্রেসের প্রবীণ ও বিক্ষুব্ধ নেতাদের ফের দলে ফেরানো ও সক্রিয় করার কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

এখন দেখার এই ত্রিফলাতে মধ্যপ্রদেশে বিজেপিকে সরিয়ে কংগ্রেসের কমল নাথ পুনরায় কুর্শি দখল করতে পারেন কিনা!

Related Articles

Back to top button
Close