fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আত্মনির্ভর বঙ্গ চায় কর্মযোগী সংঘ

রক্তিম দাশ, কলকাতা: বাড়ছে বেকারত্ব তার ওপর লকডাউনে কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। এবার তাই কাজ হারানো মানুষের পাশে দাঁড়নোর জন্য বাংলা জুড়ে এবার সক্রিয় হচ্ছে রাষ্ট্রীয় স্বংয় সেবক সংঘের শাখা সংগঠন কর্মযোগী। প্রধানমন্ত্রী মোদির আত্বনির্ভর ভারত গড়ার স্বপ্নকে বাংলায় রূপায়ণ। গীতার কর্মযোগের বাণীকে বাস্তবে রূপায়ণের লক্ষ্যে ২০১৯ সালে কর্মযোগীকে সামনে আনা হয়। একটি ট্রাস্টের মধ্য দিয়ে শুধু সমাজসেবা নয়, বেকারদের কর্মসংস্থান , স্থায়ী স্বাস্থ্য পরিষেবা কেন্দ্র, গ্রন্থগার গড়ে তোলা সহ একাধিক প্রকল্পকে সামনে রেখে বাংলায় কাজ করছে সংগঠনটি। উত্তর ২৪ পরগনা থেকে শুরু করে আজ রাজ্যের জেলায় জেলায় কাজ করছেন তাঁরা। এর পাশাপাশি হিন্দুত্ব প্রচারের মধ্য দিয়ে দেশপ্রেম গড়ে তোলার কাজ করছেন সংঘের এই সংগঠনটি। প্রতিদিন রাত ১০টায় স্যোশাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে তাঁরা গীতা পাঠের আসর চালাচ্ছেন।

কর্মযোগীর সভাপতি শান্তনু রুদ্র এবং সম্পাদক ডা. প্রসূন সান্যাল বলেন,‘ আমরা বিভিন্ন রকমের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আত্বনির্ভরতা গড়ে তোলার কাজ শুরু করেছি। উত্তর ২৪ পরগণার কর্ণমাধবপুর গ্রামে আমরা একদিনের কৃষি প্রশিক্ষণ শিবির করেছিলাম। এই শিবিরে ৩০ জন কৃষি উপস্থিত থেকে হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ নেন। প্রত্যেক কৃষককে আমরা একটি করে উন্নতমানের ফলের চারা দেওয়া হয়। বর্তমানে এখন আমাদের বাঁকুড়া জেলায় বাঁকাদহে কৃষি প্রশিক্ষণ শিবির চলছে। এখানে ১৫ জন প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন। গ্রামের মহিলাদের কর্মসংস্থানের জন্য আমরা সেলাই মেশিন দেওয়া শুরু করেছি। এধরণের প্রশিক্ষণ শিবির আগামীতে আমরা আরও আয়োজন করব।’

আরও পড়ুন: করোনাবিধি মেনে আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে খুলছে রাজ্যের সমস্ত জঙ্গল, খুশির হাওয়া পর্যটকমহলে

তাঁরা আরও বলেন,‘ শিক্ষাক্ষেত্রেও আমরা কাজ করছি। উত্তর ২৪ পরগণার বিলকান্দা গ্রামে আমরা গৃহ শিক্ষাকেন্দ্র স্থাপন করেছি। এখানে বিনামূল্যে পড়ুয়াদের পড়ানো হচ্ছে। দুঃস্থ পড়ুয়াদের আমরা শিক্ষা উপকরণ তুলে দিই সারা বছর ধরেই। নিমতা, ব্যারাকপুর এবং সোদপুরে মাসে দু’বার করে আমরা স্বাস্থ্য শিবির করি। প্রতি তিনমাস অন্তর বিভিন্ন অঞ্চলে চোখের পরীক্ষা এবং ছানি অপারেশন করাই আমরা স্বল্পমূল্যে। করোনা এবং আমফান পরিস্থিতিতে কর্মযোগীর পক্ষ থেকে প্রত্যন্ত এলাকাগুলোতে আমরা খাদ্যদ্রব্য, ত্রিপল, ওষুধ পৌঁছে দিয়েছি। বছরে বিভিন্ন সময় রক্তদান, চক্ষু এবং অঙ্গদান নিয়ে আমরা সচেতনতা মূলক প্রচার চালাই।’

হিন্দুত্ববাদের আলোকে দেশপ্রেম জাগ্রত করার জন্য কর্মযোগী নিয়মিতভাবে প্রচার চালায়। এর পাশাপাশি সংঘের স্থানীয় শাখাগুলোতে অংশ নেওয়ার জন্য সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার কাজও তাঁরা চালান বলে জানানো হয়েছে সংঘঠনটির পক্ষ থেকে।

Related Articles

Back to top button
Close