fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপির গায়ে বহিরাগত তকমা লাগিয়ে ২০২১-এ বাংলায় নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়া যাবে না : কাশেম আলী

শ্যামল কান্তি বিশ্বাস : বাংলার মাটি, দূর্জয় ঘাঁটি, এখানে রাজ্যের জনগনকে আর বোকা বানানো যাবেনা। বাংলার মানুষ কে পূনরায় বোকা বানিয়ে তৃণমূল দলটা চাইছে, ২০২১ এর নির্বাচনে ভোট বৈতরণী পার হতে,সেগুড়ে বালি, বাংলার মানুষ আর তৃনমূলের ফাঁদে পা ফেলছে না। মানুষ এদের প্রকৃত স্বরূপ টা জেনে গেছে। এবার ওদের মুখোশ নেটে খুলে দেওয়ার পালা, রাজ্যের মানুষ সেইটাই করবে। নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষায় আছেন,আজ এক সাক্ষাৎকারে কথাগুলি বললেন, বিজেপি সংখ্যালঘু সেলের রাজ্য সহসভাপতি কাশেম আলী।

 

তিনি আরও বলেন, শাসক তৃণমূল, বিজেপির সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে এখন কোন ইস্যু না পেয়ে, এ রাজ্যে সংগঠনের কাজে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের বহিরাগত তকমা লাগিয়ে তৃণমূলের কর্মীদের ভেঙ্গে পড়া মনোবল চাঙ্গা করার প্রচেষ্টায় নেমেছে,কাশেম আলীর অভিমত,কোন ফল হবে না এই শুকনো চেষ্টায়। রাজ্যের মানুষ জানেন, বিজেপি রাজনৈতিক দলটি তৃনমূলের মতো আঞ্চলিক দল নয়, বিজেপি একটি সর্বভারতীয় রাজনৈতিক দল, রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় বহাল তবিয়তে রয়েছে যে দলটি,সারা দেশের একাধিক রাজ্যের শাসনভার পরিচালনার দায়িত্ব যে দলটির, যে দলের নেতা নেত্রী সারা দেশব্যাপী বিস্তৃত। স্বাভাবিক ভাবেই দলের প্রয়োজনে, সাংগঠনিক বিস্তার ঘটাতে দেশের যে কোন রাজ্য বা এলাকার নেতাকে দল কাজে লাগাবে এটাই স্বাভাবিক, তাতে রাজ্যের শাসক তৃনমূলের এত মাথা ব্যাথা কেন?

 

বিরোধীদের প্রশ্ন করার আগে নিজেদের কে আগে উত্তর দেওয়া উচিৎ প্রশান্ত কিশোর কোন রাজ্যের? প্রশান্ত কিশোর তাহলে বহিরাগত নয় কি? দল সামলাতে বহিরাগত প্রশান্ত কিশোর কে কেন? স্বীকার করতে হবে তাহলে তৃনমূল দলের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য কোন যোগ্য লোক না থাকায় বহিরাগত প্রশান্ত কিশোর কে ভাড়া করা হয়েছে। বিজেপি কিন্তু কাউকে ভাড়া করেনি। সর্বভারতীয় নেতৃত্ব যারা এসেছেন,তারা প্রত্যেকেই দলের  আগে কর্মী তারপর নেতা ফলে এই ভাবে লোক হাসানো কথা বলে বাংলার মানুষ কে আর বোকা বানানো  যাবে না, অভিমত কাশেম আলীর।

Related Articles

Back to top button
Close