fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাটোয়ায় যুবকের রহস্যমৃত্যু, খুনের অভিযোগে আটক স্ত্রী

দিব্যেন্দু রায়, কাটোয়া: স্ত্রী ও দুই ছেলেমেয়ের সঙ্গে একই ঘরে শুয়ে থাকা অবস্থায় যুবকের রহস্যজনকভাবে মৃত্যুর ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল কাটোয়া থানা এলাকার জগদানন্দপুর গ্রামে।মৃতের নাম মাধব বাগ (৩৬)। মৃতের পরিবারের অভিযোগ পরকীয়া সম্পর্কের জেরে প্রেমিকের সঙ্গে পরিকল্পনা করে মাধবকে শ্বাসরোধ করে খুন করেছে তাঁর স্ত্রী সোমা বাগ। পুলিশ সোমাদেবীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। পাশাপাশি মৃতের ছেলেমেয়েকেও জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।
তবে এদিন বিকেল পর্যন্ত এই নিয়ে থানায় কোনও নির্দিষ্ট অভিযোগ দায়ের করা হয়নি বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, জগদানন্দপুর গ্রামের বাসিন্দা মাধব বাগ জনমজুরির কাজ করতেন। মাধবরা তিন ভাই। দাদা গদাই বাগ ও ভাই যাদব বাগের পেশাও জনমজুরি। সকলেই বিবাহিত। একই বাড়িতে তিন ভাই ও তাঁদের বাবা-মার পৃথক সংসার। স্ত্রী সোমাদেবী, ছেলে রাজেশ ও মেয়ে রিঙ্কুকে নিয়ে সংসার মাধবের। রাজেশ দশম ও মেয়ে রিঙ্কু নবম শ্রেণীতে পড়াশোনা করে।
পরিবার সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার রাতে খাওয়া দাওয়ার পর ঘরের খাটে শুয়েছিল মাধববাবুর ছেলেমেয়ে। মেঝেতে তিনি ও তাঁর স্ত্রী সোমাদেবী শুয়েছিলেন। এরপর এদিন ভোরে কাজে যাওয়ার জন্য মাধবকে ডাকতে যান তাঁর ভাই যাদব। তিনি কিছুক্ষণ ডাকাডাকির পর মাধবের মেয়ে রিঙ্কু ঘরের দরজা খুলে দেয়।

তখন তিনি ঘরের মেঝেতে মাধবকে মৃত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখতে পান। এরপর পরিবারের লোকজন সোমাদেবীকে জেরা করতে শুরু করলে তিনি অসংলগ্ন কথাবার্তা বলতে শুরু করেন। এই দেখে মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে কাটোয়া থানায় খবর দেওয়া হয়। তারপর পুলিশ এসে দেহটি উদ্ধারের পাশাপাশি মৃতের স্ত্রী সোমা বাগকে আটক করে নিয়ে যায়। পরে

ময়নাতদন্তের জন্য দেহটি বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
মৃতের ভাই যাদব বাগের অভিযোগ , “আমার বউদির সঙ্গে পাড়ার একজনের অবৈধ সম্পর্ক ছিল। এনিয়ে দাদার সঙ্গে প্রায়ই অশান্তি হত । তারই জেরে আমার দাদাকে পরিকল্পনা মাফিক খুন করা হয়েছে। দাদার গলায় একটা দাগ ছিল। আমাদের সন্দেহ বউদি ও তার প্রেমিক মিলে দাদাকে শ্বাসরোধ করে মেরে ফেলেছে ।’
পুলিশ জানিয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close