fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাটোয়া-বল্লভপাড়া ফেরিঘাটের টেন্ডারে সর্বোচ্চ দর হেঁকেও পিছু হঠলেন ইজারাদার

দিব্যেন্দু রায়, কাটোয়া: কাটোয়া-বল্লভপাড়া ফেরিঘাটে ইজারার জন্য টেন্ডার ডাকা হয়েছিল৷ সেই টেন্ডারে সর্বোচ্চ দর ওঠে ৬ কোটি ১৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। ওই দর দিয়েছিলেন অশোক সরকার নামে এক ইজারাদার। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তিনি পিছু হঠলেন৷ তিনি  নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে চুক্তির টাকা জমা দেননি বলে জানা গেছে। ফলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরদাতাকে চিঠি করল কাটোয়া পুরসভা।

পুরসভা সূত্রে জানা গেছে, ভাগীরথীর তীরবর্তী কাটোয়া শহরের অন্যপ্রান্তে রয়েছে নদিয়া জেলা। দুই জেলার মধ্যে সংযোগ রক্ষা করেছে কাটোয়া-বল্লভপাড়া ফেরিঘাটটি। এটি  ব্যাস্ততম একটি জলপথ। কাটোয়া পুরসভার অন্তর্গত এই ফেরিঘাটে প্রতি তিন বছর অন্তর ইজারার জন্য টেন্ডার ডাকা হয়।

বিগত তিনবছর আগে সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ৭৭ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। কিন্তু এবারে সর্বোচ্চ দর ওঠে ৬ কোটি ১৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। গত মঙ্গলবার এই টেন্ডারে অংশগ্রহনকারী চারজন ইজারাদারের মধ্যে ওই দর দেন অশোক সরকার নামে এক ইজারাদার। কিন্তু সর্বোচ্চ দর দিয়েও শেষপর্যন্ত তিনি পিছিয়ে এলেন।

[আরও পড়ুন- বিশ্বকর্মা পুজোর আগে ফুলের দাম বৃদ্ধি, কালোবাজারির অভিযোগ খুচরো বিক্রেতাদের]

কাটোয়া পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “কাটোয়া বল্লভপাড়া ফেরিঘাটের জন্য  সর্বোচ্চ দরদাতা ইজারাদার সময়মতো টাকা জমা দিতে না পারায় আমরা দ্বিতীয় দরদাতাকে চিঠি করে ইজারা নিতে বলেছি। সোমবারের মধ্যে তাঁকে টাকা মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।”

জানা গেছে, কাটোয়া-বল্লভপাড়া ফেরিঘাটের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ৬ কোটি ৯ লক্ষ ২০ হাজার টাকা। ওই দর দিয়েছিলেন পাঁচুগোপাল রায় নামে এক ইজারাদার। তিনি  বলেন, “পুরসভার চিঠি পাওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে চিন্তাভাবনা করছি।”

 

Related Articles

Back to top button
Close