fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মুকুটে নয়া পালক, পেলেন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি, ডাকা হল রাষ্ট্রসংঘের সম্মেলনে

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্কঃ কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর মুকুটে নয়া পালক জুড়ল। রাষ্ট্রসংঘের আলোচনা সভায় স্বীকৃতি পেলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে কে শৈলজা। করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে বিশ্বের আন্তর্জাতিক মহলে তুলে ধরেছেন কেরলের মডেল। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা হু-এর প্যানেলে ছিলেন শৈলজা। একমাত্র ভারতীয় হিসেবে ওই ওয়েবমিনারে অংশ নেন কেরলের এই মহিলা স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

 

আরও পড়ুনঃ তীব্রতা হারাতে শুরু করেছে মারণ ভাইরাস করোনার দাপট! এমনই দাবি বিশেষজ্ঞদের

হু-এর তরফ থেকে জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “বিশ্বব‍্যাপী স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে সরাসরি যুক্ত ব‍্যক্তিরা প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে নিরন্তর কাজ করে চলেছেন। তাঁদের সম্মান জানাতে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।” ওই ভারচুয়াল আলোচনা সভার মূল বক্তা হিসেবে ছিলেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এইচ ই-র জেনারেল অ্যাসেমব্লির সভাপতি তিজানি মহম্মদ-বন্দে, ইথিওপিয়ার রাষ্ট্রপতি সাহলে-ওয়ার্ক জেভেডে, হু-র মহাসচিব টেড্রোস অ্যাধনাম ঘেব্রেইসাস, রাষ্ট্রসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক  বিষয়সমূহের সেক্রেটারি-জেনারেল লিউ ঝেনমিন, রিপাবলিক কোরিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী চিন ইয়ং, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার স্বাস্থ্য কর্মী বাহিনী বিভাগের ডিরেক্টর জিম ক্যাম্পবেল, নার্সদের আন্তর্জাতিক কাউন্সিলের সভাপতি অ্যানেট কেনেডি এবং আন্তর্জাতিক পাবলিক সার্ভিস কমিটির সাধারণ সম্পাদক রোসা পাভেনেলি। আর এই তালিকাতেই ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী শৈলজাও। এই সভায় মাত্র সাত মিনিটের বক্তৃতায় নিজের বক্তব্য তুলে ধরার সুযোগ পান কেরলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী। কীভাবে নিপা ভাইরাস ঠেকানোর অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করেই কেরল সরকার করোনা মহামারী প্রতিরোধের পরিকল্পনা নেয়। সেই অভিজ্ঞাতাই তিনি তুলে ধরেন। টেস্টিং, আইসোলেশনের মতো প্রক্রিয়াগুলিকে কীভাবে শুরু থেকেই জোর দেওয়া হয়, সেই কথা জানান বিশ্বকে।

 

আরও পড়ুনঃ করোনা আবহের মধ্যে চিনে শুরু কুকুর খাওয়ার উৎসব

 

তিনি আরও বলেন যে, সরকার রাজ্যের মানুষের ন্যূনতম চাহিদাগুলি মেটানোর চেষ্টা করছেন। রেশন সামগ্রী বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া, কমিউনিটি কিচেন গড়ে তোলার মতো কর্মসূচির উল্লেখ করেন।

Related Articles

Back to top button
Close