fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কেতুগ্রামে নকল সোনার হার বিক্রি করতে গিয়ে ধৃত এক মহিলাসহ তিন

দিব্যেন্দু রায়, কাটোয়া: কেতুগ্রামে সোনার দোকানে নকল সোনার হার বিক্রি করতে গিয়ে ধরা পড়ে গেল এক মহিলা সহ তিনজন। পুলিশ জানায় ধৃতদের নাম বিশ্বজিৎ দাস, কৃষ্ণেন্দু ধাড়া ও রমা মণ্ডল। ধৃতদের মধ্যে প্রথমজন বর্ধমান শহরের সর্বমঙ্গলাপাড়ার বাসিন্দা। বাকি দুজনের বাড়ি বীরভূম জেলার বোলপুর শহরের হাটতলায়।

কেতুগ্রামের কাঁদরা বাজার থেকে ওই তিনজনকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানা গেছে৷ সোমবার ধৃতদের কাটোয়া মহকুমা আদালতে তোলা হলে ধৃতদের ৫ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক৷

[আরও পড়ুন- সামশেরগঞ্জের কামালপুরে গ্রামে গঙ্গাগর্ভে তলিয়ে গেল প্রায় ৫০ টি বাড়ি]

জানা গেছে, ঘটনাটি ঘটে রবিবার বিকেলে। ওইদিন  তিনজন মিলে একটি হার বিক্রি করতে কান্দরা বাজারের হাটতলার একটি সোনারূপোর গহনার দোকানে আসেন। দোকান মালিক তুষার মন্ডল হারটিকে কষ্টিপাথর দিয়ে পরীক্ষা করার পর হারের মুল্য বাবদ  তাদের ২৮ হাজার টাকা দেন। এরপর ওই তিনজন কাছাকাছি শেখর দাস নামে অপর এক ব্যাবসায়ীর দোকানে গিয়ে  একইরকম একটি হার দেখিয়ে বিক্রি করতে চায়।

জানা গেছে, শেখরবাবু হারটি পরীক্ষা করার পর সন্দেহ হওয়ায় সেটি তুষারবাবুকে দেখাতে আসেন। তখন তুষারবাবু বুঝতে পারেন তিনি প্রতারিত হয়েছেন।  এরপর তুষারবাবু  শেখর দাসের দোকানে এসে ওই তিনজনকে  জিঞ্জাসাবাদ শুরু করেন। সেইসময় আশপাশের আরও কিছু লোকজন জড়ো হয়ে যায়। এদিকে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে ওই তিনজন আসল সত্য স্বীকার করেন। তুষার মন্ডল,শেখর দাসরা বলেন, “ওরা সোনার জল ধরানো গহনা আসল সোনা বলে জুয়েলারি দোকানে দোকানে বিক্রি করে। এইভাবে ওরা সোনা রুপোর গহনার দোকানদারদের প্রতারিত করে।

 

Related Articles

Back to top button
Close