fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

শিক্ষকদের মধ্যে মিউচুয়াল ট্রান্সফার চালুর দাবি ‘শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চ’ এর রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারীর

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: দুইয়ের বেশি সংখ্যক শিক্ষক-শিক্ষিকার মধ্যে মিউচুয়াল ট্রান্সফার প্রক্রিয়া চালু করা যায় তার দাবিতে ‘শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চের রাজ্য সম্পাদক কিংকর অধিকারী মহাশয় বলেন – “শিক্ষক, শিক্ষিকা, শিক্ষাকর্মীদের দীর্ঘদিনের দাবি মেনে পছন্দমত বিদ্যালয়ে বদলি প্রক্রিয়া চালু হয়েছে। রাজ্যের বিগত সরকার ‘মিউচুয়াল ট্রান্সফার’ চালু করেছিল। বর্তমান সরকার তার সঙ্গে আবেদনের ভিত্তিতে ‘জেনারেল ট্রান্সফার’ এবং ‘স্পেশাল ট্রানস্ফার’ ব্যবস্থা চালু করেছে। এই ট্রানস্ফার প্রক্রিয়াকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক, শিক্ষিকা, শিক্ষাকর্মীদের মধ্যে নানা অভিযোগ দেখা গিয়েছে। বর্তমানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী শিক্ষামন্ত্রী এবং শিক্ষা দফতর বিদ্যালয় শিক্ষক, শিক্ষিকাদের জন্য অনলাইনের মাধ্যমে মিউচুয়াল ট্রান্সফার বা আপস বদলির প্রক্রিয়া শুরু করেছেন। কিন্তু যে আশা নিয়ে সকলে অপেক্ষা করেছিলেন তা প্রায় দুরাশায় পরিণত হয়েছে। একই বিষয়ে এবং একই স্কেলে থাকা সত্ত্বেও শিক্ষক-শিক্ষিকাগণ মিউচুয়াল ট্রান্সফার পাচ্ছেন না। এই নিয়ম চালু থাকলে আবেদনের ভিত্তিতে জেনারেল ট্রান্সফারের ক্ষেত্রেও একই ধরনের সমস্যা তৈরি হবে। এই জটিলতা অবিলম্বে দূর করতে হবে।

এর পাশাপাশি রাজ্য সরকার এবং শিক্ষা দফতরের কাছে দাবি জানাচ্ছি যে, মিউচুয়াল ট্রান্সফারের ক্ষেত্রে যদি দুজনের অধিক শিক্ষক-শিক্ষিকার মধ্যে ট্রান্সফারের সুযোগ দেওয়া হয় তাহলে বহুসংখ্যক ব্যক্তি এতে উপকৃত হবেন।” তিনি আরও বলেন-” উদাহরণ স্বরূপ যদি বিষয়টি দেখা যাক- ভূগোলের কোন এক গ্র্যাজুয়েট শিক্ষক মুর্শিদাবাদের একটি স্কুল থেকে পশ্চিম মেদিনীপুরে একটি স্কুলে আসতে চাইছেন। আর পশ্চিম মেদিনীপুরের ওই স্কুলের একই স্কেলে থাকা ভূগোলের শিক্ষক বাঁকুড়ার একটি স্কুলে বদলি হতে চাইছেন। আবার দেখা গেল বাঁকুড়ার ওই স্কুলে একই স্কেলে থাকা ভূগোলের শিক্ষক মুর্শিদাবাদের ওই স্কুলে যেতে চাইছেন।

আরও পড়ুন: কৃষি সেবায়ন ব্র্যান্ডের গোডাউনে অগ্নিকাণ্ড! ধীরগতিতে পুলিশি তদন্ত, খুশি নন এলাকাবাসী

কিন্তু বর্তমানে দু’জন শিক্ষকের মধ্যে মিউচুয়াল ট্রান্সফার প্রক্রিয়া চালু থাকার ফলে কেউই বদলি হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন না। এই তিন জন শিক্ষকের মধ্যে যদি মিউচুয়াল ট্রান্সফারের প্রক্রিয়া থাকতো তাহলে তাঁদের মধ্যে ট্রান্সফার প্রক্রিয়া অতি সহজেই সম্পন্ন করা যেত। এটা সম্ভব হবে তখনই, যদি শিক্ষা দপ্তর পূর্বের নিয়ম পরিবর্তন করে দুজনের বেশি শিক্ষকের মধ্যে বদলির প্রক্রিয়াকে মান্যতা দেন। সরকার কিংবা শিক্ষা দপ্তর যদি সত্যিই এ ব্যাপারে আন্তরিক হন তাহলে এই প্রক্রিয়ায় অসংখ্য শিক্ষক-শিক্ষিকা তাঁদের পছন্দমত এলাকায় সহজেই বদলি নিতে পারেন পারবেন। অনলাইন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সহজেই এই প্রক্রিয়াকে কার্যকর করা যায়। এর জন্য সরকারের অতিরিক্ত কোন আর্থিক বোঝা বহন করতে হবে না কিংবা ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনার ক্ষেত্রে কোনও ব্যাঘাত সৃষ্টিও করবে না। আবেদনের ভিত্তিতে শিক্ষক, শিক্ষিকা, শিক্ষাকর্মীদের জন্য ‘জেনারেল ট্রান্সফার’ প্রক্রিয়া অবিলম্বে চালু করা হোক এবং তার পাশাপাশি ‘মিউচুয়াল ট্রান্সফার’-এর ক্ষেত্রে এই সুবিধাটি কার্যকর করা হোক।

Related Articles

Back to top button
Close