fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

জমি আন্দোলন করে ক্ষমতায় এসে কৃষকদের ভূলে গেছে তৃণমূল! একুশে যোগ্য জবাব, কিষান মোর্চার নয়া সভাপতি মহাদেব সরকার

রক্তিম দাশ, কলকাতা: ‘সিঙ্গুর,নন্দীগ্রামে জমি আন্দোলন করে ক্ষমতায় এসে এখন কৃষকদেরই ভুলে গিয়েছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলার কৃষকরা এর যোগ্য জবাব দেবেন’ মঙ্গলবার  যুগশঙ্খকে একান্ত সাক্ষাৎকারে এমনই হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপির কিষান মোর্চার নবনিযুক্ত সভাপতি মহাদেব সরকার।

মহাদেব সরকার গত বিধানসভা নির্বাচনে কৃষ্ণনগর দক্ষিণ কেন্দ্র থেকে বিজেপির হয়ে লড়াই করেছেন। ছিলেন নদীয়া জেলার বিজেপির সভাপতি। তাঁর নেতৃত্বে গত ২০১৮ পঞ্চায়েত ভোটে বিজেপি ৪০টি পঞ্চায়েত জেতে। শৈশব থেকে আরএসএস করে আসা এই পোড় খাওয়া রাজনীতিবিদের নেতৃত্বেই গত ৩০ বছর ধরে বনগ্রাম পঞ্চায়েত বিজেপির দখলে রয়েছে।

এদিন রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে মহাদেব সরকার বলেন,‘ জমি আন্দোলন করে রাজ্যের ক্ষমতায় এসেছিল তৃণমূল। কিন্তু তারপর তাঁরা কিছুই করেনি। বাম আমলের মতোই এই সময়কালে বাংলার কৃষকরা বঞ্চিত হচ্ছেন। ফসলের নায্য মূল্য তাঁরা পাচ্ছেন না। সেচের জন্য চড়া দামে ডিজেল ও বিদুৎ কিনতে হচ্ছে তাঁদের। একরাশ হতাশা নিয়ে আজ গ্রাম বাংলার কৃষকরা পরিযায়ী শ্রমিক হয়ে ভিন রাজ্যে চলে যাচ্ছেন কাজের সন্ধানে। এর থেকে পরিত্রান চাইছেন তাঁরা।’

কৃষকরা কেন্দ্রীয় কৃষি যোজনার সুফল পাচ্ছে না তৃণমূল সরকারের জন্য অভিযোগ করে মহাদেবাবু বলেন,‘ বাংলার কৃষকরা কৃষাণ সম্মাননিধি যোজনায় ৬ হাজার টাকা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আয়ুষ্মান ভারতকে বাংলায় করতে দেওয়া হলো না বলে আজ করোনা আবহায় আমরা টের পাচ্ছি স্বাস্থ ক্ষেত্রে কতটা পিছিয়ে পড়েছি। বাংলার ৭৪ লক্ষ কৃষক আজ শুধু মাত্র রাজনৈতিক কারণে বঞ্চিত হলেন।’

আমফানে বাংলার কৃষকদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন নদীয়ার প্রত্যন্ত বনগ্রাম থেকে গেরুয়া রাজনীতি উঠে আসা কৃষক পরিবার সন্তান মহাদেব সরকার। তিনি বলেন,‘ এই ঘূর্ণিঝড়ে বাংলার লক্ষ লক্ষ কৃষকের ক্ষতি হয়েছে। মাঠের ফসল নষ্ট হয়েছে, ঘরবাড়ি ভেঙে গিয়েছে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মোদিজি বাংলায় এসে হাজার কোটি টাকা দিলে তার সঠিক বন্টন হচ্ছে না। রেশনের চাল বদল হয়ে যাচ্ছে। ৬ হাজার ২০০ মেট্রিক টন ডাল রেশনে বন্টন হয়নি। চরম দূর্নীতি চলছে।’

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে কিষান মোর্চা সবচেয়ে বড় ভূমিকা নেবে বলে মনে করেন মহাদেববাবু। তিনি বলেন,‘ রাজ্যের কৃষি সঠিক পরিকল্পনার অভাবে পিছিয়ে আছে। আমরা গ্রামের বাড়ি বাড়ি যাব। বঞ্চনার কথা বলব। স্লোগানের রাজনীতি নয়। কৃষির উন্নতির কথা বলব। আমরা আশা করি বাংলার কৃষকদের প্রতি বঞ্চনার ক্ষোভের জবাব তাঁরা ব্যালটে দেবেন। বুথ লুট করার চেষ্টা হলে তা রোখার কৌশল কিষান মোর্চা জানে এবার একুশে তা দেখতে পাবে তৃণমূল।’

Related Articles

Back to top button
Close