fbpx
কলকাতাহেডলাইন

করোনার টিকা বন্টনে প্রস্তুত কলকাতা: পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: কলকাতায় যাঁদের কো-মরবিডিটি আছে এমন ব্যক্তিদের আগেই ভ্যাকসিন দিতে চায় কলকাতা পুরসভা। সেই তালিকা প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। খ্যমন্ত্রীর গ্রিন সিগন্যালের। তিনি সেই সিগন্যাল দিলেই কলকাতার বুকে শুরু হয়ে যাবে ঐতিহাসিক গণটিকাকরণ। প্রথম দফাতেই শহরের ৫০ লক্ষ মানুষ এই টিকা পাবেন। এমনটাই জানালেন কলকাতা পুরনিগমের প্রধান প্রশাসক তথা রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

মূলত ৫০ বছরের উর্ধ্বে যারা রয়েছেন ও ৫০ বছরের নীচে যাদের কো-মোর্বিডটি রয়েছে তাঁদেরকেই বেছে নেওয়া হয়েছে প্রথম দফার কোভিড ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য। ইতিমধ্যেই এর জন্য শহরের ৩০ লক্ষ মানুষের নাম নথিভুক্ত হয়ে গিয়েছে। আরও ২০ লক্ষ মানুষের নাম নথিভুক্ত করা হবে বলেই ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন। কলকাতার ইতিহাসে তো বটেই দেশের কোনও বড় শহরের ইতিহাসে এই প্রথম এত বড় গণটিকাকরণের কর্মসূচি সরকারি স্তরে নেওয়া হচ্ছে। প্রতি বছরই দেশে পোলিও টিকা খাওয়ানো হয় শিশুদের। কিন্তু একটি শহরে ৫০ লক্ষ মানুষকে টিকা দেওয়ার ঘটনা এই প্রথম। কার্যত দিল্লি বা মুম্বইয়ের আগেই কলকাতার মানুষ টিকা পেয়ে যাবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

নাইসেডে কলকাতা পুরসভার মুখ্যপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিমকে  স্বাগত জানান ডিরেক্টর শান্তা দত্ত। এরপর ভিতরে গিয়ে তিনি যে করোনার টিকা নিতে রাজি, সেই সম্মতি পত্রে সই করেন। তারপরই আসল পর্ব। তাঁর উপরই পরীক্ষামূলকভাবে কোভ্যাক্সিন প্রয়োগ করে বৈজ্ঞানিক ট্রায়ালের সূচনা ঘটে নাইসেডে। দেশীয় ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্বের ট্রায়ালে অংশ নেওয়া কলকাতার ‘ফার্স্ট সিটিজেন’ পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম টিকা নেওয়ার ২৪ ঘণ্টা পরে ভালই আছেন। বৃহস্পতিবার তিনি জানান,“পুরো ফিট আছি। এই ভ্যাকসিন ট্রায়াল শেষ হলেই মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিলেই শহরে প্রতিটি ওয়ার্ডে গণ টিকাকরণ শুরু করব। আমাদের তালিকা সম্পূর্ণ প্রস্তুত আছে।”

 

 

 

 

 

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close