fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ই-পাস লাগবে না সিনিয়র সিটিজেনদের, সিদ্ধান্ত মেট্রো কর্তৃপক্ষের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রবীণ ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ ছাড় দিল কলকাতা মেট্রো রেল কর্তৃপক্ষ। নিউ নর্মালে কলকাতা মেট্রোয় যাতায়াত করার ক্ষেত্রে বিধি পালটেছে অনেক। টোকেন বা স্মার্ট কার্ড নয়। আগে থেকে অ্যাপের মাধ্যমে ই-পাস বুক করে তবেই সহজে মেট্রোয় ওঠা যাচ্ছে। ছ’মাস পর সোমবার থেকে ফের চালু হওয়া মেট্রোয় দিনভর এভাবেই সকলে যাতায়াত করেছেন। তবে এই পদ্ধতিতে বেশ অসুবিধার সম্মুখীন শহরের প্রবীণ নাগরিকরা ।

এবার সিনিয়র সিটিজেন’দের লাগবে না মেট্রোয় ই-পাস। সকাল ১১:৩০ থেকে বিকেল ৪:৩০ অবধি প্রবীণ নাগরিকরা মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন ই-পাস ছাড়াই। মঙ্গলবার এমনটাই জানিয়েছেন মেট্রোর মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রানী বন্দ্যোপাধ্যায়। ই পাস বুক করার বদলে প্রবীণ যাত্রীদের আধার কার্ড প্যান কার্ড দেখিয়ে স্মার্ট কার্ড ব্যবহার করলেই তারা সওয়ার হতে পারবেন মেট্রোয়।

সোমবার ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে চালু হয়েছে কলকাতায় নিউ নরমাল মেট্রো। নয়া মেট্রো পথে যাতায়াত করার জন্যে ই-পাস বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল। মেট্রো স্টেশন বা প্ল্যাটফর্মে প্রবেশ করার জন্যে ই-পাস বাধ্যতামূলক। তারপর স্মার্ট কার্ড থাকতে হবে। মেট্রো যাত্রা শুরুর প্রথম দিনেই দেখা গিয়েছিল, বহু যাত্রীর কাছে স্মার্ট কার্ড থাকলেও তারা ই-পাস করিয়ে উঠতে পারেননি। অনেক প্রবীন নাগরিক জানাচ্ছেন, প্রথমত তাদের স্মার্ট ফোন ব্যবহারে অনীহা। দ্বিতীয়ত পথদিশা অ্যাপ বা মেট্রো অ্যাপ ব্যবহার করতে সমস্যা। তাই তাদের পক্ষে ই-পাস ডাউনলোড করে মেট্রো যাত্রা সম্ভব নয়। এছাড়া প্রতি ধাপে ধাপে পূরণ করে ই-পাস পেতেও তাদের পক্ষে ব্যপারটি বেশ কঠিন। এই অবস্থায় তাদের পক্ষে নিয়ম সহজ করা হোক। শেষ মেষ প্রবীন নাগরিকদের কথা শুনে ই-পাস নিয়ে মত বদলাল কলকাতা মেট্রো।

‘পথদিশা’ অ্যাপের মাধ্যমে মেট্রোর ই-পাস আর আগে থেকে বুক করতে হবে না বয়স্ক যাত্রীদের। কলকাতা মেট্রো কর্তৃপক্ষের নয়া নিয়ম অনুযায়ী – যে কোনও ধরনের পরিচয়পত্র, যেমন, আধার কার্ড, ভোটার কার্ড, প্যান কার্ড, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স – এর মধ্যে যে কোনও একটি নিয়ে মেট্রো কাউন্টারে দেখালেই তিনি স্টেশনে প্রবেশের অনুমতি পাবেন। এরপর নিজের স্মার্ট কার্ড দিয়ে মেট্রোয় যাতায়াত করতে পারবেন। যদি কারও কাছে স্মার্ট কার্ড না থাকে, তাহলে তিনি কাউন্টার থেকে তা সংগ্রহ করেই মেট্রোয় উঠতে পারবেন।বেলা ১১.৩০ থেকে বিকেল ৪.৩০ পর্যন্ত এভাবেই যাতায়াত করতে পারবেন শহরের প্রবীণ মেট্রোযাত্রীরা।

আরও পড়ুন: ‘সরকারের কাছে কোনও ডেটা নেই, সুতরাং কোনও পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু হয়নি?’ তীব্র আক্রমণ রাহুলের

ই পাস সংগ্রহ করতে গিয়ে যে বেশ কিছু যাত্রী সমস্যার মুখে পরেছেন তাও চোখে পড়ল এদিন। একই সঙ্গে নানা স্টেশনের বাইরে জমতে শুরু করেছে ভিড়। কেউ চলে আসছে কিভাবে ই-পাস বুক করতে হবে সেটা খোঁজ নিতে বা দেখতে আবার কেউ আসছেন স্মার্ট কার্ড রিচার্জ করতে। সপ্তাহের প্রথম কাজের দিন কার্যত চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল ই-পাস নিয়ে মেট্রোতে সওয়ার হতে কলকাতার জনতার সময় লাগবে আরও কিছুদিন। ই-পাস কোথায় কিভাবে বুক করতে হবে সেটাই বুঝে উঠতে পারছেন না অনেকে। এদিকে, সোমবার দিনভর যাত্রী সংখ্যার হিসেব করে কলকাতা মেট্রো কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ‘পথদিশা’ কিংবা ‘কলকাতা মেট্রো’ অ্যাপের মাধ্যমে  ই-পাস বুক করেও অন্তত ৬০ শতাংশ যাত্রী মেট্রোয় চড়েননি। সোমবার সন্ধে ৭টা পর্যন্ত বুকিংয়ের সংখ্যা ছিল ৫০ হাজার আর যাত্রী সংখ্যা ছিল ২০হাজারের আশেপাশে। তবে ৩০ হাজার যাত্রী অনুপস্থিত থাকলেও তাঁদের জন্য আগে থেকে বুক করা সিটে অন্য কেউ আর বসতে পারেননি। ফলে এই ৩০ হাজার যাত্রীর জন্য অনেকেই ই-পাস না পেয়ে প্রথমদিন মেট্রো সফর থেকে বঞ্চিত হলেন। যা দেখে কিছুটা চমকে গিয়েছে স্বয়ং মেট্রো কর্তারাই।

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close