fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

শহরের সেফ হোমের সংখ্যা বাড়ানোর ভাবনা কলকাতা পুরসভার

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শহরের দ্বিতল সুলভ শৌচালয়গুলিকে এবার সেফ হোমে রূপান্তর করতে চাইছে কলকাতা পুরসভা। পাশাপাশি শহরের নাইট সেন্টারগুলোতেও সেফহোম খোলার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের। এই ধরনের সেফহোম গুলিতে শহরের নিম্নবিত্ত উপসর্গহীন বা মৃদু উপসর্গ যুক্ত ভবঘুরে ও বস্তিবাসীদের পৃথকভাবে রাখার ব্যবস্থা করা হবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে উপসর্গহীনরা নিজেদের অজান্তেই সংক্রমণ ছড়িয়ে দিচ্ছেন। এদের মধ্যে যারা বস্তিবাসীরা ভবঘুরে তাদের আলাদাভাবে থাকার ব্যবস্থা না থাকায় কার্যত সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে হুহু করে। সেই কারণেই এবার এই ধরনের উপসর্গহীন বা মৃদু উপসর্গযুক্তদের আলাদা করে রাখার জন্য এখানে ব্যবস্থা করতে চলেছে পুরকর্তৃপক্ষ।

বিশেষত যারা উপসর্গহীন বা স্বল্প উপসর্গ যুক্ত করোনা রোগী তাদের এনে এই সব সেফ হোমে বিনামূল্যে সরকারি পরিষেবায় রাখা হবে। পুর-আধিকারিকদের যুক্তি, বর্তমানে শহরে উত্তরোত্তর সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সরকারি যে কয়টি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার বা সেফ হোম রয়েছে, তার উপর আগামী দিনে চাপ পড়তে বাধ্য। সেইসব ভাবনা-চিন্তা করে আগে থেকেই পরিকাঠামো তৈরি রাখার চিন্তাভাবনা চলছে।

[আরও পড়ুন- তিনটি পৃথক পরিকল্পনায় করোনা পরীক্ষা চালু করছে কলকাতা পুরসভা]

কলকাতা শহরে এখনও পর্যন্ত মোট ৪২টি নাইট শেল্টার রয়েছে। যার মধ্যে কলকাতা পুরনিগমের নিজস্ব রয়েছে ৬-৭টি। আরও দুটি তৈরি হচ্ছে। বাকিগুলি রাজ্য সরকারের সমাজ কল্যাণ দফতরের। কিন্তু সেগুলি দেখাশোনা করে পুরসভাই। বর্তমানে বহু নাইট শেল্টারে পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে। কিংবা কোথাও খালি অবস্থায় পড়ে রয়েছে সংস্কার না হওয়া একাধিক নাইট শেল্টার। জনবহুল এলাকা থেকে মোটামুটি দূরের এমন কেন্দ্রগুলিকেই বেছে নেওয়া হবে এই সব সেফ হোম গড়ার জন্য। যদি ওইসব নাইট শেল্টারে কোনও আবাসিক এখন থেকে থাকে তো তাদের নিয়ে এসে অন্য নাইট শেল্টারে রাখার ব্যবস্থা করা হবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close