fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

শ্রমিক করোনায় আক্রান্ত, বানতলায় বাড়তি সতর্কতা

ফিরোজ আহমেদ,ভাঙড়ঃ এক শ্রমিক করোনা আক্রান্ত হতেই স্বাস্থ্যবিধিতে জোর দিল বানতলা শিল্পনগরী।লকডাউন এর মাঝেই কিছু কিছু কারখানা স্বল্পসংখ্যক কর্মী নিয়ে উৎপাদন চালিয়ে যাচ্ছিল। সেই কারখানাগুলোতে স্যানিটাইজার ও থার্মাল চেকিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। নতুন করে প্রতিটি কারখানার শ্রমিকদের আসা যাওয়ার পথে থার্মাল চেকিং ও কারখানার গেটে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থা করেছে কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি ট্যানারী সংগঠনের যে অফিস সেখানেও বিশেষ টানেল বসিয়েছে কতৃপক্ষ। এই স্যানিটাইজার টানেলের মধ্যে দিয়ে গেলে স্বয়ংক্রিয় মেশিনের সাহায্যে পুরো দেহটাই স্যানিটাইজড হয়ে যাবে।

 

 

গত মঙ্গলবার বানতলার এক শ্রমিকের কোভিড ১৯ পজিটিভ ধরা পড়ে। ওই শ্রমিকের বাড়ি চন্দনেশ্বর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের মহেশপুকুর গ্রাম এলাকায়। স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর, ওই শ্রমিক গত কয়েক মাসে বাড়ির বাইরে কোথাও যান নি। শুধুমাত্র বাড়ি থেকে কারখানা যাতায়াত করেছেন।তাই বানতলা থেকেই তাঁর সংক্রমণ হয়েছে বলে মনে করছে প্রশাসন। বানতলা চর্মনগরীর ৯ নম্বর জোনের যে প্লটে তিনি কাজ করতেন সেই প্লট স্যানিটাইজাইড করেছে দমকল। তা নিয়ে অন্যান্য কর্মী শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। কারণ এই মুহূর্তে বানতলা কয়েক হাজার শ্রমিক কাজ করছেন।

 

 

ভাঙ্গড় ছাড়াও মিনাখাঁ জীবনতলা সোনারপুর কলকাতার তিলজল, ট্যাংরা, তপসিয়া থেকে বহু শ্রমিক কাজ করতে আসছেন প্রতিদিন। ফলে সংক্রমণ একবার শুরু হলে তা ঠেকানো মুশকিল।বানতলা ট্যানারি সংগঠনের এক কর্তা বলেন প্রতিটি কারখানাতেই থার্মাল চেকিং এর ব্যবস্থা করা হয়েছে, গায়ে তাপমাত্রা বেশি থাকলে তাকে কারখানায় ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না উল্টে পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে সরকারি হাসপাতালে।

Related Articles

Back to top button
Close