fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পোলেরহাট ২ পঞ্চায়েতে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভে জমি কমিটি

জেলা প্রতিনিধি, ভাঙড়: আবারো বিতর্কে ভাঙড়ের পোলেরহাট ২ গ্রাম পঞ্চায়েত।আমফান ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতির আবেদন পত্র জমা দেওয়া নিয়ে বিতর্কের জেরে উত্তেজনা ছড়ালো ভাঙড়ের একদা অশান্ত পাওয়ার গ্রিড এলাকার পোলেরহাট ২ নাম্বার গ্রাম পঞ্চায়েত।

সোমবার দুপরে জমি কমিটির নেতৃত্বরা এলাকার বাসিন্দাদের নিয়ে পঞ্চায়েত অফিসে তালা মেরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে।চলে স্লোগান। আন্দোলন কারিদের অভিযোগ, সোমবার পঞ্চায়েত অফিসে এলাকার সাধারণ মানুষ আমফান ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্হ হয়ে ক্ষতি পূরণ পাওয়ার জন্য আবেদন পত্র জমা দিতে যায়।কিন্তু পঞ্চায়েতের কর্মীরা সেই আবেদন পত্র নিতে অস্বীকার করে।তারা বলে আবেদন পত্র জমা দেওয়ার সময়সীমা পেরিয়ে গিয়েছে।

যদিও আন্দোলন কারিদের দাবি সরকারি কোন নিদিষ্ট সময় সীমা নেই আবেদন পত্র জমা দেওয়া নিয়ে। এই ঘটনা নিয়ে পঞ্চায়েতের কর্মী দের সাধে এলাকার বাসিন্দা দের বচসা হয়।তার পর জমি কমিটির নেতৃত্বরা এলাকার বাসিন্দা দের নিয়ে পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে।ঘটনার খবর পেয়ে কাশিপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আন্দোলন কারিদের বুঝি অফিসের তালা খুলে দিতে বলেন।পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয় এই বিষয় নিয়ে বিডিও র সঙ্গে আলোচনা করা যেতে পারে।যদিও বিডিও ঘটনাস্থলে এসে আলোচনার মধ্য দিয়ে সমস্যার যতক্ষণ না সমাধান করবে ততক্ষণ আন্দোলন চলবে বলে জমি কমিটির পক্ষ থেকে হুশিয়ারি দেওয়া হয়‌।

এ বিষয়ে জমি কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মির্জা হাসান বলেন,”এই পঞ্চায়েতের উপ প্রধান আরাবুল পুত্র হাকিমুল ইসলাম।তাদের অঙ্গুলিহেলনে সাধারণ মানুষের ক্ষয় ক্ষতির আবেদন জমা নেওয়া হচ্ছে না।তারা মূলত তাদের অনুগামীদের আবেদন জমা নিয়েছে।”

যদিও এ বিষয়ে হাকিমুল ইসলাম বলেন, “এই অভিযোগ মিথ্যা, প্রতিটি পঞ্চায়েত সদস্য তাদের নিজেদের এলাকার মানুষের থেকে আবেদন নিয়ে পঞ্চায়েতে জমা দিয়েছে।জমি কমিটির কয়েক জন জোর করে আবেদন জমা দেওয়ার চেষ্টা করছিল।”

 

Related Articles

Back to top button
Close