fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনায় মৃত শিয়ালদহ রেলের চিফ অফিস সুপার, কলকাতা মেডিক্যালের রেডিওথেরাপি প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান!

রাজ্যে ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২২৮২, মৃত ৩৫, সুস্থ ১৫৩৫

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: করোনার থাবায় প্রতিদিনই সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রাণ হারাচ্ছেন সমাজের বিশিষ্ট মানুষজনও। জানা গিয়েছে, এবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল রেলের চিফ অফিস সুপারিনটেনডেন্ট বিশ্বনাথ নাথের। কলকাতা মেডিক্যালের রেডিওথেরাপি প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধানও। একই সঙ্গে সোমবার প্রকাশিত বুলেটিনে জানা গিয়েছে, রাজ্যে ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২২৮২ জন, মৃত্যু হয়েছে ৩৫ জনের, সুস্থ হয়েছে রেকর্ড সংখ্যক ১৫৩৫ জন।

 

রেল সূত্রে খবর, শিয়ালদহের ‘ক্যারেজ এন্ড ওয়াগন’ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিশ্বনাথবালু সপ্তাহখানেক আগে জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাওড়ার সঞ্জীবনী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তাঁর কোভিড পজিটিভ রিপোর্ট আসে। রবিবার রাত সাড়ে ন’টা নাগাদ মৃত্যু হয় বিশ্বনাথ নাথের।রেলকর্মীদের মধ্যে সংক্রমণ ছাড়িয়ে পড়ার জন্য রেল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছে পূর্ব রেলের মেনস ইউনিয়ন। সোমবার সকাল থেকে লিলুয়া ওয়ার্কশপে ওয়ার্কশপ পার্সোনাল অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় ইউনিয়নের সদস্যরা।

 

অন্যদিকে, করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে কলকাতা মেডিক্যালের রেডিওথেরাপি প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান এক ক্যানসার চিকিৎসকেরও। জানা গিয়েছে, কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে প্রায় ২ সপ্তাহ চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। শনিবার রাতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় মৃত্যু হয়। নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজের প্রাক্তন ছাত্র এই চিকিৎসক আর জি করে রেডিওথেরাপি বিভাগেও অধ্যাপনাও করেছেন।

 

এদিকে, সোমবার প্রকাশিত বুলেটিন অনুযায়ী, ২২৮২ নতুন আক্রান্তের ফলে পশ্চিমবঙ্গে মোট সংক্রমণ ৪৪৭৬৯ জনের। একই সঙ্গে নজিরবিহীন ভাবে রাজ্যে ২৪ ঘন্টায় রেকর্ড সংখ্যক ১৫৩৫ জন সুস্থ হওয়ায় রাজ্যে মোট সুস্থ সংখ্যা ২৬৪১৮ জন। ২৪ ঘন্টায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যুতে মোট মৃত্যু ১১৪৭ জনের।
এদিন অন্যান্য জেলার সঙ্গে কলকাতাতে এদিন ৩৯৫ জন, উত্তর ২৪ পরগনায় ৩৩৩ জন, হাওড়ায় ১৫৬ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ১৫১ জন সুস্থ হয়েছেন। কিন্তু সুস্থতার সংখ্যা বাড়ায় সুস্থতার হার সামান্য বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৯.০১ শতাংশে। এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ১৭২০৪ জন। তার মধ্যে এদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা বেড়েছে ৭১২ জনের।

বুলেটিনে আরও জানানো হয়েছে, এদিন পর্যন্ত রাজ্যের ৫৪ টি ল্যাবে মোট করোনা টেস্টের সংখ্যা ৭১৬৩৬৫ জনের। তার মধ্যে ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ১৩০৮১ জনের। রাজ্যের ৮১ টি করোনা হাসপাতাল, ২৭ টি সরকারি এবং ৫৪ টি বেসরকারি হাসপাতালে মোট ১১২৩৯ টি বেড আছে, আইসিইউ পরিষেবা রয়েছে ৯৪৮ জনের। ভেন্টিলেটর রয়েছে ৩৯৫ টি। তার ৩৭.০৯ শতাংশ রোগী ভর্তি আছেন।

সরকারি ৫৮২ টি কোয়ারেন্টাইনে এখন রয়েছেন ৩৭০২ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ১০৩৬৩০ জনকে। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৩১৩২৯ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ৩৪৭৭২০ জনকে। রাজ্যে সেফ হোম ও তার বেড সংখ্যা এবং সেখানে রোগীদের সংখ্যা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, রাজ্যের ১০৬ টি সেফ হোমে ৬৯০৮ টি বেড রয়েছে এবং তাতে ৬৮৯ জন রোগী রয়েছেন।

এছাড়া এদিনের বুলেটিনে জেলাওয়াড়ি তথ্যে জানানো হয়েছে, এর মধ্যে কলকাতায় সংক্রমণ ৬৪৫ জন, উত্তর ২৪ পরগনায় রেকর্ড সংক্রমণ ৫৭৪ জন। মৃত ৩৫ জনের মধ্যে ১৬ জন কলকাতার, ৮ জন উত্তর ২৪ পরগনার, ৭ জন হাওড়ার বাসিন্দা। কলকাতায় এদিন রেকর্ড সংখ্যক ৬৪৫ আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় মোট সংক্রমণ ১৩৯৮৯ জনের। এদিন কলকাতায় আরও ১৬ জনের মৃত্যু হওয়ায় কলকাতাতে মোট মৃত্যু ৫৯২ জনের। এছাড়া এদিন উত্তর ২৪ পরগনাতেও ৫৭৪ জন সংক্রামিতের সংখ্যা বাড়ায় মোট আক্রান্ত সংখ্যা ৯১৫০ জন। এখানেও এদিন আরও ৮ জনের মৃত্যু হওয়ায় মোট মৃত্যু ২২১ জন। হাওড়াতে আরও ৭ জনের মৃত্যু হওয়ায় এই জেলায় মোট মৃত্যু সংখ্যা ১৫২ জন। এছাড়া দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৩ জন এবং জলপাইগুড়িতে ১ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এদিন অন্যান্য জেলার সঙ্গে হাওড়ায় ২১৩ জন, হুগলিতে ১৮১ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ১৬৪ জন, মালদায় ৮১ জন, পূর্ব মেদিনীপুরে ৭২ জনের উল্লেখযোগ্য হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিন উত্তরবঙ্গের কালিম্পং এবং দক্ষিণবঙ্গের পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রাম ছাড়া সংক্রমণ বেড়েছে রাজ্যের বাকি সমস্ত জেলাতেই।

মোট আক্রান্ত ৪৪৭৬৯ জন
মোট মৃত ১১৪৭ জন
মোট সুস্থ ২৬৪১৮ জন

Related Articles

Back to top button
Close