fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

২৪ ঘন্টায় মালদায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়াল ১৭

মালদা: মালদায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে । গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নতুন করোনায় ১৭ জন আক্রান্ত হয়েছেন। যার মধ্যে মালদা শহরের গৌড়কন্যা বাস টার্মিনাস এলাকার দুইজন বাসিন্দা রয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে। আক্রান্তদের প্রত্যেককে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করানো হয়েছে পুরাতন মালদার নারায়নপুর এলাকার কোভিক হাসপাতলে । এনিয়ে মালদা শহরের মধ্যে করোনা আতঙ্ক ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

 

 

এদিকে সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী, বুধবার থেকেই মালদা শহরের শিশু উদ্যান, পার্ক এবং অনেক রেস্তোরাঁ খুলে দেওয়া হয়েছে। যেখানে বিকেল গড়াতেই ভিড় করছে বহু মানুষেরা। এমনকি রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকছে মালদার শুভঙ্কর শিশু উদ্যান। অথচ আনলক-ওয়ানের প্রাথমিক পর্যায়ে সরকারিভাবে বলে দেওয়া হয়েছে সন্ধ্যা সাতটা থেকে পরের দিন সকাল সাতটা পর্যন্ত কোন রকম দোকানপাট , জনবহুল এলাকা খোলা রাখা যাবে না। কিন্তু সেই সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করেই এখন মালদা শহরের বিভিন্ন এলাকায় পার্ক থেকে রেস্তোরা, শপিং মল, বাজার রমরমিয়ে চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এক্ষেত্রে প্রশাসনের উদাসীনতাকে দায়ী করেছে বিভিন্ন মহল।

 

 

এদিকে জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের তথ্য অনুযায়ী, মালদায় নতুন করে ১৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন । যাদের মধ্যে মালদা শহরের গৌড়কন্যা বাস টার্মিনাস এলাকার রয়েছে ২ জন। রতুয়া ২ ব্লকের আড়াই ডাঙ্গা এলাকার রয়েছে ৩ জন । মানিকচক ব্লকের রয়েছে ২ জন , ইংরেজবাজার ব্লকের মিল্কি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার রয়েছে ১ জন ‌, রতুয়া ১ ব্লকে রয়েছে ৫ জন এবং চাচোল এলাকায় রয়েছে ৪ জন। এখনো পর্যন্ত মালদা জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ২৪৮। যদিও করোনা আক্রান্ত হয়ে মালদায় কোন মৃত্যুর খবর নেই।

 

 

এদিকে মালদায় করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকলে বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ ছড়িয়েছে । কিন্তু তারপরেও ব্যাপকহারে মালদায় শুরু হয়েছে টোটো চলাচল। বিভিন্ন ধরনের যানবাহন রাস্তায় নেমেছে। যেখানে-সেখানে বাজার বসছে। ফের ফুটপাত দখল করে দোকান প্রসার বসানোর শুরু হয়েছে। অবাঞ্চিত ভাবে মানুষ রাস্তাঘাটে ভিড় করছে। কোথাও কোন রকম ভাবে সমদূরত্ব মানা হচ্ছে না । অধিকাংশ ক্ষেত্রে মুখে মাক্স ব্যবহার করতেও দেখা যাচ্ছে না বহু মানুষদের বলে অভিযোগ উঠেছে । এক্ষেত্রে পুরসভা এবং প্রশাসন কেন নিশ্চুপ রয়েছে তা নিয়ে অভিযোগ তুলেছেন শহরের একাংশ মানুষ।

 

 

যদিও এপ্রসঙ্গে ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর অন্যতম সদস্য বাবলা সরকার বলেন, লকডাউন বিধি কিছুটা শিথিল করে বেশ কিছু দোকান খোলার নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে প্রতিটি ব্যবসায়ীকে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেনেই বেচাকেনা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মাস্ক ব্যবহার না করলে দোকানিরা যাতে ওইসব খদ্দেরের বেচাকেনা না করেন সেই নির্দেশ বলা হয়েছে। তবে কোনও শিশু উদ্যান বা পার্ক-এর ক্ষেত্রে বেশি জমায়েত অথবা নির্দিষ্ট সময়ের বাইরে খুলে রাখার ব্যাপারে অভিযোগ এলে, বিষয়টি অবশ্যই খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close