fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বিধানসভায় করোনা থাবায় ভেস্তে গেল বাম কং জোটের অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: আপাতত থমকে গেল বিধানসভার গেটের বাইরে বাম জোটের অবস্থান বিক্ষোভ। বৃহস্পতিবার এমনটাই জানালেন কংগ্রেস পরিষদ নেতা আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন বিধানসভা ও হাইকোর্ট চত্বরে আক্রান্ত হবার খবর পাওয়া গিয়েছে সে কারণেই আপাতত এই আন্দোলনকে আমরা স্থগিত রাখছি। বুধবার খবর পাওয়া গিয়েছে বিধানসভার একজন টাইপরাইটার কর্মী করো না আক্রান্ত হয়েছেন। আর তারপর থেকেই আগামী ২৩ তারিখ পর্যন্ত বিধানসভার সমস্ত কাজকর্ম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়।
অর্থাৎ ২৪ তারিখ থেকে ফের বিধানসভা খুলবে এমনটাই জানা গিয়েছে সূত্র মারফত। ইতিমধ্যে বিধানসভা কে স্যানিটাইজ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
এদিন থেকে বাম কং জোটের রাজ্যের চিকিৎসাব্যবস্থা ও আম্ফান দুর্নীতিকে ইস্যু করে বিক্ষোভ বসার কথা ছিল। কিন্তু করোনার আবহে সেই আন্দোলন মাঝপথে বন্ধ করে দিতে হলো। কিন্তু তা সত্বেও কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে মান্নান বলেন, আপাতত স্থগিত রাখা হল আন্দোলন। কিন্তু তার মানে আমরা আন্দোলন থেকে এক পা ও সরছিনা। সুজন বাবুর সঙ্গে কথা বলে আগামী দিনে কর্মসূচি আবারও ঘোষণা করব। যে ইস্যু আমরা তুলে ধরেছি তা নিরূপণ না হলে আগামী দিনে ভয়ঙ্কর আন্দোলনে নামব। আমরা কোন রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে আন্দোলনে না বিনি সাধারণ মানুষের কথা বলতেই বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছে। আমরা যা যা অভিযোগ করেছি সেগুলি কোনটাই অসত্য নয় প্রয়োজন হলে মুখ্যমন্ত্রী নিজে সরজমিনে খতিয়ে দেখুন। যদি আমাদের সরাসরি বলতে অসুবিধা হয় মুখ্যমন্ত্রীর তবে সংবাদমাধ্যমে বলুক আমরা প্রত্যেক জায়গায় প্রতিনিধি পাঠিয়ে দেখিয়ে দেব কি পরিস্থিতি।
মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তোপ দেগে মান্নান আরো বলেন, ‘মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী যে অসত্যভাষণ করেছেন, সেজন্য তাঁর সরকারেরই তাঁকে ‘বঙ্গরত্ন’ উপাধিতে ভূষিত করুক! পাশাপাশিই, যে জনগন করোনা প্রতিরোধে সরকারের সাফল্য (সব করোনা আক্রান্তকে সুচিকিৎসার সুযোগ দেওয়া) ও আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষকে (99.5% ) সরকারের ত্রাণ বিতরণ দেখতে পাননি, মুখ্যমন্ত্রী তাঁদেরও চোখের চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন।’

Related Articles

Back to top button
Close