fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সময় থাকতে থাকতেই তাই নামতে হবে প্রতিবাদের পথে, অমিতের বিরুদ্ধে রাস্তায় আজ বামেরা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: যেটুকু আসছে সেটাও না হারিয়ে যায়। সময় থাকতে থাকতেই তাই নামতে হবে প্রতিবাদের পথে। । এদিনই নামতে হবে পথে, গেরুয়ার বিরুদ্ধে, মোদি-অমিতের বিরুদ্ধে। ভার্চুয়াল সভা করে রাজ্যের বিধানসভার ভোট প্রস্তুতি শুরু করে দেবেন শাহ। হাতছাড়া হবে ভোটব্যাঙ্কও। তাই নামো এবার রাস্তায়। এদিন বিজেপি নেতা অমিত শাহের ভার্চুয়াল সভার বিরুদ্ধে কলকাতার রাস্তায় প্রতিবাদে নামতে চলেছেন বাম নেতৃত্ব।

রবিবার সন্ধ্যাতেই বাম ছেড়ে রামের শিবিরে যোগ দেওয়ার ইঙ্গিত দিয়ে দিয়েছেন প্রাক্তন বাম সাংসদ তথা এশিয়াডে জোড়া সোনা জয়ী ক্রীড়াবিদ জ্যোতির্ময়ী শিকদার। বামেদের একদা এই সোনার মেয়েকেই একদিন সোনার মুকুট নিজের হাতে পড়িয়ে দিয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু। সেই সোনার মেয়ে আজ শিবির বদল করার ইঙ্গিত দিতেই নড়চড়ে বসতে বাধ্য হলেন বাম নেতারা। বিজেপির বিরুদ্ধে এই রাজ্যে লড়াইটা এখনও একাই চালিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে মমতা বিরোধীতার সুর জিইয়ে রেখেও নিজেদের ভোটব্যাংক আর আগলে রাখতে পারছেন না বাম নেতারা। ক্রমশই তা চলে যাচ্ছে গেরুয়া শিবিরে। এভাবে চলতে থাকলে অচিরেই রাজ্য রাজনীতি থেকেই ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যাবেন রাজ্যের ৩৪ বছরের শাসকেরা।

আরও পড়ুন: ভারতে গোষ্ঠী সংক্রমণ হওয়া এখন সময়ের অপেক্ষা, আক্রান্ত পেরোল ২.৭০ লক্ষ

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচন থেকেই চোখে পড়ছিল নিঃশব্দে এই রাজ্যে নিজেদের পায়ের তলার জমি বাড়িয়ে চলেছে বিজেপি। আর সেই জমি বামেদের কাছ থেকে কেড়েই। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বামেদের আসন যেখানে এরাজ্যে শূন্য, বিজেপি সেখানেই ১৮। এদিন অমিত শাহ ভার্চুয়াল সভা করে এই রাজ্যে ভোট প্রস্তুতি শুরু করে দেবেন। সেই প্রস্তুতিতে থাকবে নিজেদের আরও শক্তিশালী হিসাবে গড়ে তোলা। বিজেপি শুধু যে তৃণমূল ভাঙিয়েই বড় হবে তা নয়, ভাঙাবে তাঁরা বামেদেরও। এরই নিদর্শন সোনার মেয়ের সগিবির বদল। তাই এদিন থেকেই পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে রাস্তায় নামছেন বিমান, সূর্য, সেলিমেরা। এদিন বেলা ১১টা থেকে ১২টা অবধি রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানাবে বামেরা।

এই বিষয়ে মহম্মদ সেলিম জানিয়েছেন, ‘অমিত শা-র ভার্চুয়াল জনসভার সময়ে রাজ্য জুড়ে পথে নামবে সিপিএম। এতদিন অমিত শাহের টিকি দেখতে পাওয়া যাচ্ছিল না। মধ্যপ্রদেশের সরকার ভাঙা ও নমস্তে ট্রাম্পের পর আর তাঁকে দেখাই যাচ্ছিল না। অমিত শাহ যেখানকার সাংসদ, সেই আমেদাবাদে করোনা মৃত্যুর হার সর্বাধিক। এখন পশ্চিমবঙ্গ ও বিহারের ভোট রাজনীতি করতে, গুজরাটের বিধায়ক কেনাবেচা করতে সক্রিয় হয়েছেন। মানুষের সামনে যাওয়ার সাহস নেই, তাই সোশ্যাল মিডিয়ার তথাকথিত জনসভা করছেন! খাদ্যের দাবিতে, ত্রাণের দাবি-সহ বিভিন্ন দাবিতে শারীরিক দূরত্বও বজায় রেখেই এই বিক্ষোভ হবে। সর্বশক্তি নিয়ে প্রতিবাদ হবে।’

 

 

Related Articles

Back to top button
Close