fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ইংরেজবাজারে বেহাল নিকাশী নালা, পুরসভা ঘেরাও করে বিক্ষোভ বামেদের

মিল্টন পাল, মালদা: একটু বৃষ্টি বা খরা সব সময় জল জমে থাকে ওয়ার্ডের যত্রতত্র। হুঁঁশ নেই কাউন্সিলর থেকে প্রশাসকের। যার ফলে বেহাল নিকাশী ব্যবস্থা। ঘটনাটি ইংরেজবাজার থানার ৩ নম্বর ওয়ার্ড এলাকায়। মঙ্গলবার এর প্রতিবাদ জানিয়ে প্রাক্তন তৃণমূলের কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে অবস্থান-বিক্ষোভ সোচ্চার হল মালদা ওই ওয়ার্ডের বামফ্রন্ট কমিটি। সিপিএমের জেলা সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য কৌশিক মিশ্রের নেতৃত্বে ইংরেজবাজারর পুরসভার মেন গেটের সামনে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সার্বিক উন্নয়নের পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে এবং স্থানীয় প্রাক্তন কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে উন্নয়নে উদাসীনতার অভিযোগ তুলে বিক্ষোভে সামিল হন বাম নেতৃত্ব।

এদিন কয়েক ঘন্টা ধরে পুরসভার মেইন গেটের সামনে চলে বাম নেতাদের প্রতিবাদ এবং বিক্ষোভ, অবস্থান। এরপর ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারপার্সন তথা বিধায়ক নিহার ঘোষের কাছে ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বেহাল অবস্থার কথা জানিয়ে গণস্বাক্ষর সম্বলিত একটি স্মারকপত্র দেওয়া হয়। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন পুরসভার প্রসাশক নিহার ঘোষ।

বলাবাহুল্য, বর্ষার মরশুম শুরু হতেই ইংরেজবাজার পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় বৃষ্টি এবং নর্দমার জল জমে যাওয়ার কারণে ব্যাপক অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে। ওই ওয়ার্ডের মালঞ্চপল্লী, কৃষ্ণপল্লি , নেতাজী কলোনি, বাপুজী কলোনি সহ একাধিক এলাকায় নর্দমার জলের মধ্যেই বসবাস করতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট এলাকার বাসিন্দাদের বলে অভিযোগ উঠেছে। এনিয়েই ক্ষোভ ছড়িয়েছে অধিকাংশ বাসিন্দাদের মধ্যে। এমনকি পোকা-মাকড়ের উপদ্রব বেড়েছে । পাশাপাশি মশাবাহিত রোগ ছড়াচ্ছে ওই ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের স্বার্থের কথা ভেবে প্রাক্তন কাউন্সিলর এর বিরুদ্ধে উদাসীনতার অভিযোগ তুলে ৩ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির নেতাকর্মীরা এই বিক্ষোভ আন্দোলনে সামিল হন।

সিপিএম নেতা কৌশিক মিশ্র বলেন, এমনিতেই করোনা আতঙ্কে দিন কাটছে সকলের। তার ওপর প্রায় এক মাস ধরে ইংরেজবাজার পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়ে রয়েছে। জমা জলে ডেঙ্গুর আঁতুড়ঘর তৈরি হয়েছে। অথচ পুরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর এই সমস্যার ব্যাপারে কোন রকম ভাবে হেলদোল দেখায়নি। তাই বাধ্য হয়েই এদিন পুরসভার সামনে বিক্ষোভ অবস্থানে বসতে হয়েছে। পুরো সমস্যার কথা লিখিত আকারে পুরসভার প্রশাসক কর্তৃপক্ষের কাছেও জমা দেওয়া হয়েছে।

জেলা বিজেপি সহ সভাপতি অজয় গাঙ্গুলি বলেন,শাসকদলের কাউন্সিলর থেকে নেতাকর্মী কাটমানি নিতে ব্যস্ত। ফলে কাজ হবে কোথায়। সেই কারন এলাকা নোংরা জলে জলমগ্ন থাকে সব সময়। অপেক্ষার কয়েকদিন ক্ষমতায় এসে সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে।

ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য দুলাল সরকার বলেন ,৩ নম্বর ওয়ার্ডের সমস্যার কথা শুনেছি। অধিকাংশ ক্ষেত্রে জল নিকাশি ব্যবস্থা করা হয়েছে।ইতিমধ্যে জল নিকাশির জন্য কয়েকটি পাম্প কিনেছি। দ্রুত সমস্যার সমাধান করা হবে। কেউ বিক্ষোভ করতেই পারে তাতে আমাদের কোন যায় আসে না।

Related Articles

Back to top button
Close