fbpx
পশ্চিমবঙ্গশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

‘এবার পঠন পাঠনের জন্য বিদ্যালয়গুলি খুলে দেওয়া হোক’ দাবি শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চের

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: লকডাউনের কারণে বাস সহ অন্যান্য গণপরিবহণই ছিল সাধারণ মানুষের একমাত্র লাইফ লাইন। তার দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর বুধবার থেকে আবার চালু হল লোকাল ট্রেন, ধীরে ধীরে বাড়বে ট্রেনের সংখ্যাও। তবে লোকাল ট্রেন চালু করার মধ্যেও যে কোভিড 19 এর স্বাস্থ্যবিধির ওপর গুরুত্ব দিয়ে সাধারণ মানুষকে সচেতন থাকতে হবে, তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে রেল সমস্ত স্টেশনেই স্যানিটাইজেশন সহ নানান সচেতনতামূলক ভূমিকা পালন করছে। লক্ষ্য একটাই জনজীবন ধীরে ধীরে সচল হোক। তাই এবার ছাত্র, ছাত্রী, শিক্ষাকর্মী সহ শিক্ষামহলের একাংশের দাবি এবার স্কুলে পঠনপাঠন অবিলম্বে চালু করা হোক। বিশেষ করে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র-ছাত্রীরা ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এবং মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের ফাইনাল পরীক্ষা কবে? তার সিলেবাসসহ দিনক্ষণ অবিলম্বে ঘোষণা করুক রাজ্য শিক্ষা দপ্তর ‘শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চ’ এমনটাই দাবি করেছেন রাজ্য সরকার ও শিক্ষা দপ্তরের কাছে।
তবে অবশ্য ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, এবারে আর মাধ্যমিক-উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের টেস্ট পরীক্ষা নেওয়া হবে না। সবাইকে ফাইনাল পরীক্ষায় বসার জন্য অনুমতি দেওয়া হল।

শিক্ষক-শিক্ষাকর্মী-শিক্ষানুরাগী ঐক্য মঞ্চে’র রাজ্য সম্পাদক,–কিংকর অধিকারী জানিয়েছেন “পরিবহণ ব্যবস্থা বিশেষ করে ট্রেন, বাস চলাচল আপাতত স্বাভাবিক, এবার বিধিসম্মত ভাবে বিদ্যালয়গুলিকে পঠন পাঠনের জন্য খুলে দেওয়া হোক। বাস্তব পরিস্থিতিতে সারা বছর জুড়ে ছাত্র-ছাত্রীদের পঠন পাঠন ব্যাহত হয়েছে। বিশেষ করে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীরা ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। সামনেই মাধ্যমিক এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা।প্রাথমিকভাবে অন্তত এদের(নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের) জন্য বিধিসম্মতভাবে বিদ্যালয় গুলি পঠন পাঠনের জন্য খুলে দেওয়ার আবেদন জানাচ্ছি রাজ্য সরকার এবং শিক্ষা দফতরের কাছে।”

Related Articles

Back to top button
Close